kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

ট্রাম্পের অভিশংসন শুনানি শুরু ৮ ফেব্রুয়ারি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সদ্য সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন শুনানি ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন সিনেটের ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমার। গত শুক্রবার তিনি জানান, ট্রাম্পের পক্ষে বক্তব্য তুলে ধরার জন্য ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ সিনেট নেতা মিশ ম্যাককনেল দুই সপ্তাহ সময় চেয়েছেন। ফলে সিনেটের ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের সমঝোতায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ক্ষমতা হস্তান্তরের মাত্র এক সপ্তাহ আগে চলতি মাসের ১৩ তারিখ দ্য হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস ট্রাম্পকে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসন করে। তাঁর বিরুদ্ধে ক্যাপিটলের সহিংসতায় উসকানি দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

শুমার জানান, আগামী সোমবার অভিশংসনের আর্টিকেলটি সিনেটে পাঠানো হবে। ওই দিনই এটি সিনেটে পড়া হবে। পরদিন শুনানির জুরি বোর্ডের ১০০ সদস্য শপথ নেবেন। এরপর অভিশংসন ব্যবস্থাপক হিসেবে স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির কাছ থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের সদস্যরা ও ট্রাম্পের আইনজীবীরা তাঁদের আইনগত কার্যক্রমের খসড়া তৈরির জন্য সময় পাবেন। ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে সেগুলো উপস্থাপনের পালা শুরু হবে। মাঝখানের দুই সপ্তাহ সিনেট বাইডেনের মন্ত্রিসভার মনোনয়ন এবং কভিড ত্রাণ বিলের কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকবে। শুমার আরো বলেন, ‘সত্য ও দায়িত্ববোধ থাকলেই নিরাময় ও ঐক্য আনা সম্ভব। আর বিচারের মাধ্যমে এ জিনিসটিই করা হবে। ট্রাম্প যা করেছেন, মার্কিন সংবিধান অনুযায়ী তা বিরাট অপরাধ ও বিধিবহির্ভূত।’

প্রায় এক বছর আগে জো বাইডেন ও তাঁর পরিবারের ব্যাপারে তদন্ত শুরু করতে চাপ দেওয়ার অভিযোগে প্রথমবারের মতো ট্রাম্পকে অভিশংসন করে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস, কিন্তু সে যাত্রায় তিনি রক্ষা পেয়ে যান। তখন সিনেট ছিল রিপাবলিকান নিয়ন্ত্রিত। তবে বর্তমানে সিনেটে রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটদের সংখ্যা সমান এবং ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করতে তাদের দুই-তৃতীয়াংশের অনুমোদন প্রয়োজন। অর্থাৎ অন্তত ১৭ জন রিপাবলিকানকে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোট দিতে হবে। শেষ পর্যন্ত যদি তা-ই ঘটে তাহলে ট্রাম্পকে ভবিষ্যতে সরকারি দপ্তর পরিচালনার দায়িত্ব থেকে নিষিদ্ধ করা হবে কি না, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য আরেকবার ভোট হবে।

এদিকে দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, নির্বাচনের ফল পাওয়ার পর ট্রাম্প ভারপ্রাপ্ত মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ্রি আ রোসেনকে সরিয়ে দিয়ে বিচার বিভাগের এক আইনজীবীকে ওই পদে বসাতে চেয়েছিলেন। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা