kalerkantho

শনিবার । ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১৪ রজব ১৪৪২

সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন

শুনানি শুরু সোমবার

সময় বাড়ানোর পথ খুঁজছেন রিপাবলিকানরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শুনানি শুরু সোমবার

সদ্যোবিদায়ি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে সিনেটে অভিশংসনের প্রক্রিয়া আগামী সোমবার শুরু হবে। ১০০ সদস্যের এই উচ্চকক্ষে তাঁর বিরুদ্ধে ওই দিন এসংক্রান্ত অভিযোগ উত্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা। অবশ্য এ ব্যাপারে সময় বাড়ানোর পথ খুঁজছেন রিপাবলিকানরা।

ক্যাপিটল ভবনে হামলা চালাতে সমর্থকদের উসকানি দেওয়ার পর ট্রাম্পকে অভিশংসন করা হয় কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদে। এর ফলে তিনি হলেন একমাত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট, যিনি দুবার অভিশংসিত হয়েছেন। ক্ষমতা থেকে বিদায় নিলেও এর জের কাটছে না। তাঁকে এবার সিনেটে অভিশংসিত করা হবে। তবে সিনেটে অভিশংসন শুনানি যেন ‘ন্যায্য’ হয়, সে জন্য সময় চাচ্ছেন রিপাবলিকানরা। সিনেটের ডেমোক্র্যাট নেতা চাক শুমার রিপাবলিকানদের ওই অনুরোধ পর্যালোচনা করছেন বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলো।

এদিকে রিপাবলিকান সিনেটর মিচ ম্যাককনেল স্থানীয় সময় গত বৃহস্পতিবার এক কনফারেন্স কলে ট্রাম্পের আইনজীবীদের সঙ্গেও এ ব্যাপারে আলোচনা করেছেন। তিনি বলেছেন, তাঁরা যেন ট্রাম্পের অভিশংসন মোকাবেলায় প্রস্তুতি নেন।

সিনেটে অভিশংসন প্রশ্নে ট্রাম্প শিবিরকে আরো সময় দেওয়া উচিত কি না, তা নিয়ে দেখা দিয়েছে বিতর্ক। ডেলাওয়ার থেকে নির্বাচিত ডেমোক্র্যাট সিনেটর ক্রিস কুনস জানান, ডেমোক্র্যাটদের অনেকে ট্রাম্পকে সময় দিতে চান, যেন তিনি আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য পর্যাপ্ত সময় পান। অনেকে মনে করেন, অভিশংসন প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করা উচিত।

স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি গত বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভস প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অভিশংসনের জন্য প্রস্তুত ছিল। এখন সিনেট প্রস্তুত না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা যেতে পারে। সিনেট থেকে প্রস্তুতির কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, অভিশংসন প্রক্রিয়ার গতি নির্ধারণে সিনেটকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

ট্রাম্প এরই মধ্যে অভিশংসন মোকাবেলার জন্য আইনজীবী নিয়োগ দিয়েছেন। সাউথ ক্যারোলাইনার আইনজীবী বাচ বায়ারকে আইনজীবী হিসেবে ট্রাম্প নিয়োগ দিয়েছেন বলে তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগী সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম জানিয়েছেন।

সিনেটর গ্রাহাম বলেছেন, ট্রাম্পের অভিশংসন মোকাবেলার জন্য একটাই যুক্তি তুলে ধরা হবে। সেটি হলো যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়া কোনো প্রেসিডেন্টকে অভিশংসন করার নিয়ম নেই।

রিপাবলিকানদের অনেকেই সদ্য সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে আর অভিশংসন বিচারে দাঁড় না করাতে অনুরোধ জানাচ্ছেন। বলা হচ্ছে, সংবিধানে এমন কোনো বিধান নেই, কিন্তু স্পিকার পেলোসি রিপাবলিকানদের এমন অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, একজন প্রেসিডেন্ট ক্ষমতার শেষ সময়ে এসে যা ইচ্ছা তা করবেন, এমন উদাহরণ মেনে নেওয়া যায় না। এ প্রসঙ্গে তিনি ক্যাপিটল হিলে হামলার ঘটনা উল্লেখ করেন।

ট্রাম্পকে অভিসংশন করতে ১০০ সদস্যের সিনেটের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের সমর্থন প্রয়োজন। ডেমোক্র্যাটদের ধারণা, এ জন্য প্রয়োজনীয় ১৭ রিপাবলিকান সিনেটরের সমর্থন পেয়ে যাবেন। ১৭ রিপাবলিকানের সমর্থন না পেলে অভিশংসন চেষ্টা সফল না-ও হতে পারে। সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা