kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১২ ফাল্গুন ১৪২৭। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১। ১২ রজব ১৪৪২

নতুন দিনের স্বপ্ন

শামীম আল আমিন, নিউ ইয়র্ক   

২১ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নাটকীয়তায় ভরপুর কোনো সিনেমা কিংবা পাতায় পাতায় রহস্যে ভরা কোনো উপন্যাসের ঘটনাপ্রবাহ যেন। কিংবা ছোটগল্পের মতো শেষ হয়েও হয় না শেষ। যে কারণে বলা যাচ্ছিল না, এরপর কী? যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির চেহারা এমনটা কে কবে দেখেছে। ইতিহাসের বই উল্টেপাল্টেও এমন জটিল আর ঘটনাবহুল সময় খুঁজে পাচ্ছেন না বিশ্লেষকরা। তবে আপাতদৃষ্টিতে গণতন্ত্রের জয়কেই বড় করে দেখছে সবাই। তবে এমন শক্তিশালী গণতন্ত্রও যে একজন মানুষের জন্য চ্যালেঞ্জের মুখে পড়ে যাবে, সেটা নিয়েও কেউ কখনো ভাবেনি।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে প্রায় চল্লিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে বসবাস করছেন সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ। জো বাইডেনের অভিষেকের মধ্য দিয়ে তিনি কী প্রত্যাশা করেন—এমন প্রশ্নের জবাবে বর্ষীয়ান এই সাংবাদিক বলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য ক্ষতিকর একজন প্রেসিডেন্টের বিদায়ে আমি খুব স্বস্তি পাচ্ছি। সেই সঙ্গে একজন সভ্য, ভদ্র ও অভিজ্ঞ অভিভাবক পেয়েছে দেশ। আমি বিশ্বাস করি তিনিই পারবেন বিশ্বের বুকে আমেরিকার সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনতে।’

২০২০ সালের ৩ জানুয়ারি হয়ে যাওয়া নির্বাচনের পর থেকে শেষ পর্যন্ত ফলাফল মানেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প। বরং একের পর এক মামলা থেকে শুরু করে হামলা পর্যন্ত দেখেছে যুক্তরাষ্ট্রের মানুষ। গত ৬ জানুয়ারি দেশটির অন্যতম স্পর্শকাতর ও মর্যাদার ক্যাপিটল ভবনে নজিরবিহীন হামলা চালায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সমর্থকরা। ফলে আরো একটি ইতিহাস গড়ে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসিত হতে হয় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে। সেই থেকে দেশজুড়ে থমথমে অবস্থা। কখন কী হয়, তা নিয়ে উদ্বেগ!

একদিকে করোনা মহামারির জটিল অবস্থা, মৃত্যু ছাড়িয়ে গেছে চার লাখেরও বেশি। অন্যদিকে নতুন প্রেসিডেন্ট বাইডেনের অভিষেক ঘিরে ছিল আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির শঙ্কা। রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে জারি করা হয় জরুরি অবস্থা। আক্ষরিক অর্থেই গোটা শহর ঢেকে ফেলা হয় নিরাপত্তার চাদরে। ২৫ হাজার ন্যাশনাল গার্ডের সদস্য মোতায়েন করা হয়। দেশটির রাজধানীতে এত বেশি সেনা সমাবেশ কেউ কখনো দেখেনি। এমনকি সেটা যুদ্ধক্ষেত্র হিসেবে পরিচিত ইরাক, আফগানিস্তান কিংবা সিরিয়ায় মোতায়েন করা মার্কিন সেনাদের চেয়েও বেশি। ফলে অনেকটা আক্ষেপ করেই ইউনিভার্সিটি অব সাউথ আলাবামার ডিজিটাল জার্নালিজমের সহযোগী অধ্যাপক ড. এম দেলোয়ার হোসেন বলছিলেন, ‘এমনটা প্রত্যাশিত ছিল না।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা