kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ফাখরিজাদেহ হত্যাকাণ্ড

যথাসময়ে জবাব দেওয়ার হুমকি রুহানির

ইরানের পরমাণু স্থাপনায় যেতে পারবেন না আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যথাসময়ে জবাব দেওয়ার হুমকি রুহানির

একদিকে চলছে ইরানের জ্যেষ্ঠ পরমাণুবিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদেহর লাশ দাফনের প্রস্তুতি, অন্যদিকে চলছে তাঁকে হত্যার মোক্ষম জবাব দেওয়ার প্রস্তুতি। পার্লামেন্টের রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর ইরানের শীর্ষ নেতৃত্বের কথাবার্তায় মিলছে সেই প্রস্তুতির স্পষ্ট লক্ষণ।

ফাখরিজাদেহকে ইরানের পরমাণু কর্মসূচির জনক মনে করে ইসরায়েল। গত শুক্রবার চোরাগোপ্তা হামলায় তাঁর মৃত্যুর পেছনে ইসরায়েলই দায়ী বলে অভিযোগ করেছে ইরান, উঠেছে প্রতিশোধ নেওয়ার কথাও। এ নিয়ে মধ্যপ্রাচ্য আরো উত্তপ্ত হয়ে আশঙ্কা প্রবল বলে মনে করেন পর্যবেক্ষকরা। ভবিষ্যৎ যা-ই দাঁড়াক, এখন ফাখরিজাদেহকে সম্মানের সঙ্গে বিদায় জানাচ্ছে ইরানিরা।

গত শনিবার রাতে ফাখরিজাদেহর মরদেহ ইরানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় মাশাদ শহরে ইমাম রেজার মাজারে জানাজার জন্য নেওয়া হয়। দেশটির রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা ইরনা এ খবর নিশ্চিত করেছে। এরপর লাশ রাজধানী তেহরানের দক্ষিণে কম শহরে ফাতিমা মাজুমেহর মাজারে নেওয়ার কথা। সবশেষে তেহরানের ইমাম খামেনির মাজারে তাঁর লাশ নেওয়ার পরিকল্পনার কথা জানায় ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর আজ সেনাবাহিনীর উচ্চপদস্থ কমান্ডার ও ফাখরিজাদেহর পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে তাঁকে দাফন করা হবে বলে জানিয়েছে ওই মন্ত্রণালয়। তবে তাঁকে কোথায় দাফন করা হবে, তা নিশ্চিত করা হয়নি।

ফাখরিজাদহর দাফন সম্পন্ন হওয়ার আগেই তাঁর হত্যাকাণ্ডের তদন্তের বিষয়ে গতকাল রবিবার ইরানের পার্লামেন্টের এক রুদ্ধদ্বার অধিবেশন হয়েছে। অধিবেশনের পর এক বিবৃতিতে সরকারপক্ষ জানায়, আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকদের এখন থেকে ইরানের কোনো পরমাণু কার্যক্রম পরিদর্শনের অনুমতি দেওয়া হবে না।

এ ছাড়া ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, ফাখরিজাদেহ হত্যার প্রতিশোধ ‘যথাসময়ে’ নেওয়া হবে। তাড়াহুড়া করতে গিয়ে ইরান কোনো ‘ফাঁদে’ পা দেবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ফাখরিজাদেহ হত্যাকাণ্ডের জেরে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বেগ জানানো দেশগুলোর কাতারে গতকাল যোগ দিয়েছে ব্রিটেন। গতকাল এক বিবৃতিতে নিজেদের উদ্বেগ জানান ব্রিটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব।

বিবৃতি দিয়েছে তুরস্কও। এ ছাড়া তাঁর মৃত্যুতে শোক ও সহানুভূতিও জানায় তুরস্ক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে বিবেচনাবোধ ও ধৈর্যশীলতার পরিচয় দেওয়ার আহ্বান জানায় তুর্কি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এদিকে সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা সংযমের আহ্বান জানাচ্ছি এবং যেসব পদক্ষেপের কারণে এ অঞ্চলে (মধ্যপ্রাচ্যে) উত্তেজনা বাড়তে পারে, সেগুলো এড়িয়ে যাওয়ার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি।’ সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা