kalerkantho

বুধবার। ৬ মাঘ ১৪২৭। ২০ জানুয়ারি ২০২১। ৬ জমাদিউস সানি ১৪৪২

ভারতে বছরে ১০ কোটি টিকা বানাবে রাশিয়া

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতে বছরে ১০ কোটি টিকা বানাবে রাশিয়া

ভারতে প্রতিবছর ১০ কোটি ‘স্পুিনক ভি’ কভিড টিকা বানাবে রাশিয়া। এ লক্ষ্যে ভারতীয় ওষুধ কম্পানি ‘হেটেরো’র সঙ্গে চুক্তি হয়েছে ‘রাশিয়ান ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের (আরডিআইএফ)’। গত বৃহস্পতিবার স্পুিনক ভির টুইটার অ্যাকাউন্টে এ কথা জানানো হয়েছে। আরডিআইএফই রুশ কভিড টিকা বানানোর গবেষণায় অর্থ সাহায্য করেছে।

রুশ সংস্থার তরফে দেওয়া জানানো হয়েছে, ভারতে তাদের উদ্ভাবিত কভিড টিকার উৎপাদনে দেরি হবে না। টিকা উৎপাদন আগামী বছরের শুরুর দিক থেকেই শুরু হয়ে যাবে।

ভারতে স্পুিনক ভি টিকার দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালাচ্ছে ওষুধ কম্পানির রেড্ডিজ ল্যাবরেটরিজ লিমিটেড। সংস্থাটি জানিয়েছে, আগামী বছরের মার্চেই ট্রায়ালের ফল জানা সম্ভব হবে। আর তা সম্ভব হলে আগামী বছরের এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে ভারতে বানানো রুশ কভিড টিকার বাজারে আসার সম্ভাবনা তৈরি হবে।

এদিকে অ্যাস্ট্রোজেনেকা ও অক্সফোর্ড উৎপাদিত টিকার সাফল্যের হার নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় টিকাটির অনুমোদন পেতে দেরি হতে পারে বলে ধারণা করছেন বিশেষজ্ঞরা। স্বেচ্ছাসেবকদের একাংশকে একটি ডোজ দেওয়ার পর আরেকটি পূর্ণাঙ্গ ডোজ না দিয়ে ভুল করে অর্ধেক ডোজ দেওয়ার পর টিকার সাফল্যের হার ৯০ শতাংশ পাওয়ায় টিকাটির সত্যিকারের সক্ষমতা ও কার্যকারিতা নিয়ে অনেক বিজ্ঞানীই প্রশ্ন তুলেছেন।

গত সোমবার যুক্তরাজ্যভিত্তিক ওষুধ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রোজেনেকা এক ঘোষণায় অক্সফোর্ডের সঙ্গে যৌথভাবে বানানো তাদের পরীক্ষামূলক কভিড-১৯ টিকার ব্রাজিল ও যুক্তরাজ্যে করা চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়ালের ফলে গড়ে ৭০ শতাংশ সফলতার কথা জানায়। এর মধ্যে বেশির ভাগ স্বেচ্ছাসেবককে দুটি পূর্ণাঙ্গ ডোজ দেওয়া হয়েছিল, তাদের ক্ষেত্রে টিকাটির সাফল্য ৬২ শতাংশ। আর যে খুব ছোট অংশকে ভুল করে দেড় ডোজ দেওয়া হয়েছিল, তাদের ক্ষেত্রে সাফল্যের হার পাওয়া যায় চোখ ধাঁধানো, ৯০ শতাংশ। এই ফল নিয়েই উঠেছে প্রশ্ন।

বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাবে, গতকাল পর্যন্ত বৈশ্বিক আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ছয় কোটি সাড়ে ১৮ লাখে। এ সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়েছে চার কোটি ২৪ লাখ রোগী। আর প্রাণহানির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৩৭ হাজারে। সূত্র : আনন্দবাজার, রয়টার্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা