kalerkantho

শনিবার। ২ মাঘ ১৪২৭। ১৬ জানুয়ারি ২০২১। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে মারধর

ফ্রান্সে তিন পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফ্রান্সে তিন পুলিশ কর্মকর্তা বরখাস্ত

প্যারিসের কেন্দ্রস্থলে কৃষ্ণাঙ্গ এক সংগীত প্রযোজককে পুলিশের মারধরের ভিডিও দেখার পর ফ্রান্সের কর্তৃপক্ষ ঘটনার সঙ্গে জড়িত তিনজন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করেছে। গত শনিবারের ওই মারধরের ঘটনা ফ্রান্সজুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর আচরণ ও কর্মকাণ্ড নিয়ে নতুন করে ক্ষোভের সঞ্চার করেছে।

এদিকে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁ এই ঘটনায় মর্মাহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। গতকাল বুধবার প্রেসিডেন্ট প্যালেস থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়। গত বৃহস্পতিবার তিনি বিষয়টি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী গেরালদ দাঁমানিনের সঙ্গে বৈঠক করেন।

২০২২ সালে অনুষেষ্ঠয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশের  আইন শৃঙ্খলা পরিসিস্থতি নিয়ে এমননিতেই অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে রয়েছেন ম্যাখোঁ। এ নিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীগুলোকেও বিশেষ সতর্ক  অবস্থানে রাখা হয়েছে। সেই পরিস্থিতির মধ্যেই এই ভিডিওটি ভাইরাল হলো।

এর আগেও প্যারিসে একটি অস্থায়ী অভিবাসন শিবির ভেঙে ফেলায় সোমবার পুলিশের বিরুদ্ধে অপ্রয়োজনীয় শক্তি প্রয়োগেরও অভিযোগ উঠে। ফ্রান্সের সরকার যখন পুলিশ কর্মকর্তাদের মুখের ছবি সম্প্রচারে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আইন আনার চেষ্টা করছে, তখনই এ ধরনের ঘটনাগুলোর খবর পাওয়া যাচ্ছে।

আইনটির সমালোচকরা বলছেন, পুলিশ সদস্যদের মুখ না দেখা গেলে বা চিহ্নিত করা সম্ভব না হলে গত সপ্তাহে হওয়া ঘটনাগুলোর মতো নিপীড়নের ঘটনা কখনোই আলোর মুখ দেখবে না।

গত বৃহস্পতিবার ফ্রান্সের ফুটবল তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পে জাতীয় দলে তাঁর বেশ কয়েকজন সতীর্থ এবং আরো অনেক খেলোয়াড়ের মতোই কৃষ্ণাঙ্গ সংগীত প্রযোজককে মারধরের ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন। টুইটারে আহত সংগীত প্রযোজকের রক্তাক্ত মুখের ছবি দিয়ে এমবাপ্পে বলেন, ‘অসহনীয় ভিডিও, অগ্রহণযোগ্য সহিংসতা। বর্ণবাদকে না বলুন।’

পুলিশের মারধরে আহত ওই সংগীত প্রযোজকের নাম মাইকেল বলে জানা গেছে। অনলাইন গণমাধ্যম লুপসাইডার গত বৃহস্পতিবার মাইকেলকে তিনজন পুলিশ কর্মকর্তার মারধরের ভিডিওটি প্রকাশ করে। সিকিউরিটি ক্যামেরার ওই ভিডিওতে কৃষ্ণাঙ্গ প্রযোজককে পুলিশের ওই কর্মকর্তাদের লাথি ও ঘুষি মারতে দেখা যায়।

লুপসাইডার জানিয়েছে, মাইকেলকে প্রথমে মাস্ক না পরার দায়ে আটকানো হয়েছিল। এর পরপরই মারধরের ওই ঘটনা ঘটে। আহত মাইকেলের দাবি, শুধু মারধরই নয়, তিনি বর্ণবৈষম্যেরও শিকার হয়েছিলেন। কৃষ্ণাঙ্গ এই সংগীত প্রযোজকের বিরুদ্ধে পুলিশ প্রথমে সহিংসতা ও গ্রেপ্তারে বাধা দেওয়ার অভিযোগ আনলেও কৌঁসুলিরা পরে এসব অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন। এরপর পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের তদন্ত শুরু করেন।

প্যারিসের মেয়র অ্যান হিদেলগো বলেছেন, পুলিশ কর্মকর্তাদের এ ধরনের ‘অগ্রহণযোগ্য কর্মকাণ্ডে’ তিনি ‘পুরোপুরি বিস্মিত’। গত বৃহস্পতিবার নিজের আইনজীবীকে নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তরে আসা মাইকেল বলেছেন, ‘যাদের আমাকে রক্ষা করার কথা, তারাই আমার ওপর হামলা করেছে। আমি এমন কিছুই করিনি, যার জন্য আমাকে এটা পেতে হয়েছে। আমি চাই, প্রচলিত আইনেই এই তিনজনের শাস্তি হোক।’ এরপরই ওই তিন কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করার খবর জানা যায়। সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

মন্তব্য