kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ মাঘ ১৪২৭। ২৮ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বাইডেনের ‘পররাষ্ট্র’ সামলাবেন ব্লিনকেন

জলবায়ুবিষয়ক বিশেষ দূত হচ্ছেন জন কেরি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৪ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাইডেনের ‘পররাষ্ট্র’ সামলাবেন ব্লিনকেন

অ্যান্টনি ব্লিনকেন

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মন্ত্রিসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন অভিজ্ঞ কূটনীতিক অ্যান্টনি ব্লিনকেন। গতকাল সোমবার রাতে বাইডেন তাঁর পররাষ্ট্রনীতি ও জাতীয় নিরাপত্তা দলের সদস্যদের নাম প্রকাশ করেন। নির্বাচনের প্রায় তিন সপ্তাহ পার হলেও এখনো পরাজয় স্বীকার করেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প। বরং শুরু থেকেই নির্বাচনে কারচুপির ‘প্রমাণহীন’ অভিযোগ তুলে আসছেন তিনি। তবে ট্রাম্প পরাজয় স্বীকার না করলেও ২০ জানুয়ারি প্রেসিডেন্টের আসনে বসার বিষয়টি সামনে রেখে নতুন মন্ত্রিসভা গোছানোর কাজ শুরু করে দিয়েছেন জো বাইডেন।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের দৃষ্টিতে, ৫৮ বছর বয়সী কূটনীতিক ব্লিনকেন মূলত ভূ-রাজনীতিতে যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্য বাড়ানোর বিষয়টিকে প্রাধান্য দেবেন। এছাড়া চীনকে মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের সঙ্গে আরো শক্তিশালী সম্পর্ক গড়বেন তিনি।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আন্তর্জাতিক যেসব চুক্তি থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন, ব্লিনকেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হলে আবার সেগুলোতে যোগদানের চেষ্টা করবেন। এর মধ্যে প্যারিস জলবায়ু চুক্তি, ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তি ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠার বিষয়গুলো রয়েছে।

গত জুলাইয়ে এক অনুষ্ঠানে ব্লিনকেন বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তন হোক, যেকোনো মহামারি কিংবা প্রাণঘাতী অস্ত্রের বিস্তার হোক, আপনি একা এসব সমস্যা মোকাবেলা করতে পারবেন না। এমনটি যুক্তরাষ্ট্রের মতো শক্তিশালী দেশের পক্ষেও তা এককভাবে মোকাবেলা করা সম্ভব নয়। এ ক্ষেত্রে ওয়াশিংটনের উচিত, মিত্রদের সঙ্গে নিয়ে এসব সংকট মোকাবেলা করা।’

ব্লিনকেনের মতে, চীন এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী। এ কারণে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পেলে মিত্রদের নিয়ে চীনকে মোকাবেলা করার কথা জানিয়েছেন হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির সাবেক এই শিক্ষার্থী।

বাইডেনের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি দপ্তরের মন্ত্রী হিসেবে মনোনীত হয়েছেন আলেজান্দ্রো মেয়োরকাস। তিনিই হবেন ওই দপ্তরের দায়িত্ব পালনকারী প্রথম লাতিনো আমেরিকান। যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে পরিবারকে আলাদা করাসহ ট্রাম্প প্রশাসনের আমলে কঠোর সীমান্তনীতি বাস্তবায়নকারী হোমল্যান্ড সিকিউরিটি দপ্তরকে ঢেলে সাজানো হবে তাঁর কাজ।

সিআইএর সাবেক শীর্ষ কর্মকর্তা ও সহকারী জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অ্যাভরিল হেইন্সকে ন্যাশনাল ইন্টেলিজেন্সের পরিচালক পদে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। অত্যন্ত ক্ষমতাশালী ওই পদে দায়িত্ব পালনকারীদের মধ্যে তিনিই প্রথম নারী।

জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত হিসেবে বাইডেন মনোনয়ন দিয়েছেন পররাষ্ট্র দপ্তরে ৩৫ বছর দায়িত্ব পালনকারী কূটনীতিক লিন্ডা থমাস গ্রিনফিল্ডকে। ওবামা-বাইডেন প্রশাসনে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের আফ্রিকাবিষয়ক ব্যুরোর অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি ছিলেন। কূটনীতিক হিসেবে তিনি চারটি মহাদেশে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

আরেক ঘনিষ্ঠ সহযোগী জেইক সুলিভানকে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মনোনীত করেছেন বাইডেন। এ ছাড়া তিনি সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক বিশেষ দূত হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন। প্যারিস জলবায়ু চুক্তি সইয়ে মুখ্য ভূমিকা ছিল জন কেরির।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা