kalerkantho

শুক্রবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৭ নভেম্বর ২০২০। ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

দিল্লি ও কেরালায় সংক্রমণ বাড়ছেই

ছয় মাসের মধ্যে পুনরায় সংক্রমণের ঝুঁকি নেই

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দিল্লি ও কেরালায় সংক্রমণ বাড়ছেই

সপ্তাহের শুরুতে ভারতের দৈনিক সংক্রমণ ৩০ হাজারের নিচে নামলেও তিন দিন ধরে তা ৪৫ হাজারের বেশিই থাকছে। সঙ্গে দৈনিক প্রাণহানিও ৫০০ ছাড়িয়ে যাচ্ছে। যদিও আক্রান্তের থেকে সুস্থ বেশি হওয়ায় ভারতে রোজই কমছে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা। এদিকে অক্সফোর্ডের গবেষকরা কিছুটা স্বস্তির খবর দিয়েছেন। তাঁরা জানাচ্ছেন, করোনায় আক্রান্ত রোগী সুস্থ হওয়ার পর ছয় মাসের মধ্যে পুনরায় সংক্রমণের ঝুঁকি নেই।

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুসারে, গত ২৪ ঘণ্টায় সেখানে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৪৬ হাজার ২৩২ জন। এ নিয়ে প্রতিবেশী দেশটিতে মোট আক্রান্ত হলো ৯০ লাখ ৫০ হাজার ৫৯৭ জন। এসংখ্যক আক্রান্ত নিয়ে ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে আছে। প্রথম স্থানে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে।

ভারতের বেশির ভাগ রাজ্যেই দৈনিক সংক্রমণ গত এক মাসে কমেছে। কিন্তু দিল্লি (৬,৬০৮) ও কেরালায় (৬,০২৮) তা ঊর্ধ্বমুখী। গত কয়েক দিনে মহারাষ্ট্রেও দৈনিক সংক্রমণ হচ্ছিল অনেক কম।

করোনা এখন পর্যন্ত ভারতে এক লাখ ৩২ হাজার ৭২৬ জনের প্রাণ কেড়েছে। আক্রান্ত ও মৃত্যু বৃদ্ধির মধ্যেই স্বস্তিদায়ক দেশের সুস্থতার হার। অন্যদিকে পুনরায় করোনার সংক্রমণ নিয়ে এক গবেষণা পরিচালনা করেছে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি। বিভিন্ন হাসপাতাল ও নার্সিং হোমে ভর্তি হওয়া করোনা রোগীদের পর্যবেক্ষণে গবেষকরা দেখেছেন, পুনরায় সংক্রমণ কিভাবে হানা দিচ্ছে শরীরে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর গবেষকরা বলেছেন, শুরুতে যতটা উদ্বেগ ছিল, এখন তা কমেছে। দেখা গেছে, করোনা থেকে সেরে ওঠার অন্তত ছয় মাস পর্যন্ত শরীরে ভাইরাসটি ঢুকতে পারবে না। ১১ হাজার ৫২ রোগীর ওপর পরীক্ষা করেই এ সিদ্ধান্তে এসেছেন বিজ্ঞানীরা।

বিশ্ব পরিস্থিতি : গতকাল পর্যন্ত বিশ্বের ২১৪টি দেশ ও অঞ্চলে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ কোটি ৯৫ লাখে। এ সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়েছে চার কোটি পাঁচ লাখ রোগী। আর প্রাণহানির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৮৮ হাজারে। সূত্র : আনন্দবাজার।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা