kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

নিঃসঙ্গ হয়ে পড়ছেন ট্রাম্প

মুখ ফিরিয়ে নিল মিশিগানও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নিঃসঙ্গ হয়ে পড়ছেন ট্রাম্প

ইলেকটোরাল কলেজের ৩০৬টি ভোট পেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্সি নিশ্চিত করে ফেলেছেন জো বাইডেন। বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণার কাজটিও শুরু হয়েছে। কিন্তু পরাজয় স্বীকার করতেই নারাজ ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাতে অবশ্য প্রেসিডেন্সি ধরে রাখতে পারছেন না তিনি, উল্টো হারাচ্ছেন মিত্রদের।

গত ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে পপুলার ভোটের হিসাবে ট্রাম্পের চেয়ে ৬০ লাখেরও বেশি ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বাইডেন। তাঁর পাওয়া মোট ভোটও যুক্তরাষ্ট্রে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে, প্রায় আট কোটি। ৫৩৮টি ইলেকটোরাল ভোটের মধ্যে ৩০৬টি পকেটে পুরেছেন এই ডেমোক্র্যাট নেতা।

সর্বশেষ জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের ভোট পুনর্গণনার রায়ও গেছে বাইডেনের পক্ষে। এমনকি জর্জিয়ার ফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা ঠেকাতে ট্রাম্প শিবির যে মামলা করেছিল, সেটাও নাকচ হয়ে গেছে। গত শুক্রবার নির্বাচনী ফল সংক্রান্ত কাগজপত্রে সই করে দিয়েছেন ওই অঙ্গরাজ্যের রিপাবলিকান গভর্নর ব্রায়ান কেম্প।

জর্জিয়ায় ট্রাম্পের সব চেষ্টার ব্যর্থতা শুধু আনুষ্ঠানিকতায় সীমাবদ্ধ নয়, নীরবে ঘটে চলেছে তাঁর ক্রমশ মিত্রহীন হওয়ার প্রক্রিয়াও। জর্জিয়ার রিপাবলিকান নেতা সেক্রেটারি অব স্টেট ব্র্যাড র‌্যাফেনসপারজার ভোট কারচুপির অভিযোগ উপেক্ষা করে বলেছেন, ‘সংখ্যা মিথ্যা বলে না। সংখ্যার মধ্য দিয়ে জনতার রায় প্রতিফলিত হয়েছে।’ জর্জিয়ায় ১২ হাজার ৬৭০ ভোটের ব্যবধানে জিতেছেন বাইডেন।

এদিকে নেভাডার নির্বাচনী ফলের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আটকাতে চেয়ে ট্রাম্প শিবির যে মামলা করেছিল, সেটাও গত শুক্রবার নাকচ করে দেন বিচারক। আগামী সপ্তাহে আসতে পারে এই অঙ্গরাজ্যে বাইডেনের জয়ের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা। এখানে ৩৩ হাজারের বেশি ভোটের ব্যবধানে ট্রাম্পকে পেছনে ফেলেছেন সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

এ ছাড়া উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যের ডেন কাউন্টিতে আগাম ভোটগুলো বাতিলের যে আবেদন ট্রাম্পপক্ষ করেছিল, গত শুক্রবার সেই আবেদনও বাতিল হয়ে যায়। ওই অঙ্গরাজ্যে বর্তমানে আংশিক ভোট পুনর্গণনা চলছে।

আদালতে ঘা খেয়ে দিনটি শেষ হয়নি ট্রাম্পের। তাঁর ব্যক্তিগত উদ্যোগও মুখ থুবড়ে পড়ে এদিন। মিশিগানের ১৬টি ইলেকটোরাল ভোট নিজের পক্ষে টানতে তিনি সেখানকার রিপাবলিকান নেতাদের সঙ্গে হোয়াইট হাউসে বৈঠক করেন। সেই বৈঠকে কোনো কাজ হয়নি। বৈঠক শেষে মিশিগান সিনেটের সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মাইক শারকি ও সেখানকার হাউস স্পিকার লি শ্যাটফিল্ড যৌথ বিবৃতিতে বলেন, ‘আইনসভার নেতা হিসেবে আমরা মিশিগানের ইলেকটর প্রশ্নে আইন ও স্বাভাবিক প্রক্রিয়া অনুসরণ করব। নির্বাচনকালজুড়েই আমরা এ কথা বলে আসছি।’ মিশিগানে ভোট কারচুপির কোনো ইঙ্গিত পর্যন্ত তাঁরা পাননি, সেটাও স্পষ্ট বলেছেন বিবৃতিতে।

এই ঘটনার পরও থামেননি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তাঁর ঘনিষ্ঠ দুই সূত্র জানিয়েছে, পেনসিলভানিয়ার রিপাবলিকান আইন প্রণেতাদের হোয়াইট হাউসে আমন্ত্রণ জানানো নিয়ে কথাবার্তা চলছে। আগামীকাল সোমবার এই অঙ্গরাজ্যের ফল ঘোষণা করা হবে আনুষ্ঠানিকভাবে।

জনতার রায় পাল্টে দিতে একের পর এক চেষ্টা যখন ব্যর্থ হচ্ছে, তখন নিজের অজান্তেই একবারের জন্য হলেও পরাজয় স্বীকার করে নেন ট্রাম্প। গত শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে তিনি ইঙ্গিত দেন, ওষুধের দাম নির্ধারণ সংক্রান্ত যে ঘোষণা তিনি দিয়েছেন, সেটা বাস্তবায়নের দায়িত্ব পরবর্তী প্রশাসনের। কথাসূত্রে পরমুহূর্তেই তিনি অবশ্য বলেন, নির্বাচনে তিনিই জিতেছেন।

সূত্র : সিএনএন, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা