kalerkantho

বুধবার । ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৫ নভেম্বর ২০২০। ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

ম্যাখোঁর মন্তব্যে মধ্যপ্রাচ্যে ক্ষোভ

ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ম্যাখোঁর মন্তব্যে মধ্যপ্রাচ্যে ক্ষোভ

মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র ‘প্রত্যাহার করা হবে না’—ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাখোঁর এমন ঘোষণায় আরববিশ্বে ক্ষোভ দানা বেঁধেছে। এরই মধ্যে ফরাসি পণ্য বর্জন শুরু হয়েছে একাধিক দেশে।

সম্প্রতি শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের মহনবী (সা.)-কে নিয়ে আঁকা ব্যঙ্গচিত্র দেখানোর জেরে খুন হন ফরাসি শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটি। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গত বুধবার ম্যাখোঁ এই ঘোষণা দেন।

এদিকে ফরাসি জাতীয়তাবাদী চেতনা রক্ষায় প্যাটি হত্যাকাণ্ডের আগে থেকেই ফরাসি প্রেসিডেন্টের ‘ইসলামবিদ্বেষী’ কথাবার্তার প্রতিক্রিয়ায় গত শনিবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে বলেন, ‘ম্যাখোঁর মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন।’ তিনি বলেন, ‘একজন রাষ্ট্রনায়ককে এর চেয়ে বেশি কী বলা যায়, যিনি বিশ্বাসের স্বাধীনতার বিষয়টি বোঝেন না এবং তাঁর দেশে বসবাসরত ভিন্ন বিশ্বাসের লাখ লাখ মানুষের সঙ্গে এমন ব্যবহার করেন?’

তুর্কি প্রেসিডেন্টের এই মন্তব্যের জেরে ফ্রান্সে নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে ম্যাখোঁ সরকার। ফরাসি প্রেসিডেন্ট দপ্তরের একজন কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের মন্তব্য গ্রহণযোগ্য নয়। এরদোয়ান যেন তাঁর নীতিগত অবস্থান পরিবর্তন করেন, আমরা সেই দাবি জানাচ্ছি। তাঁর এই অবস্থান সব দিক থেকেই বিপজ্জনক।’

চলতি মাসের শুরুতে ম্যাখোঁ ইসলামকে ‘সংকটাপন্ন ধর্ম’ বলে মন্তব্য করেন এবং ফ্রান্সে ‘ইসলামী বিচ্ছিন্নতাবাদ’ দমন করতে আরো কঠিন আইন প্রণয়ন করা হবে বলে ঘোষণা দেন। ফ্রান্সের প্রায় ১০ শতাংশ নাগরিক মুসলিম, যা ইউরোপের অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় বেশি।

জর্দানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ‘বাকস্বাধীনতার নামে বারবার মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের’ নিন্দা জানিয়েছে। দেশটির বিরোধী দল ইসলামিক অ্যাকশন ফ্রন্ট পার্টি ফরাসি প্রেসিডেন্টকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি দেশটির পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছে। এরই মধ্যে কুয়েত ও কাতারে ফরাসি পণ্য বর্জন শুরু হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্রটি ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে ফরাসি ব্যঙ্গাত্মক পত্রিকা শার্লি এবদোয় প্রথম প্রকাশিত হয়। এরপর ওই পত্রিকায় হওয়া হামলায় কার্টুনিস্টসহ ১২ জন নিহত হন। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা