kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ১ ডিসেম্বর ২০২০। ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

জঙ্গি হামলার পর ঘুরে দাঁড়াচ্ছে পুলওয়ামা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উন্নতির ছোঁয়া লেগেছে ভারতশাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায়। জঙ্গি হামলার পর বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নতি করছে কাশ্মীরের ওই অঞ্চলটি। বিশেষত শিক্ষায় স্থানীয়দের কৃতিত্ব নজর কেড়েছে। খেলাধুলা ও উৎপাদনের ক্ষেত্রেও ঘুরে দাঁড়িয়েছে অঞ্চলটি।

পুলওয়ামার বাসিন্দা বাসিত আহমেদ খান ভারতের ন্যাশনাল এলিজিবিলিটি কাম এন্ট্রান্স টেস্ট (এনইইটি) সফলতার সঙ্গে পাস করেছেন। তিনি প্রবেশিকা পরীক্ষায় ১৮৮তম স্থান দখল করেন। ২০২০ সালের পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায়, বাসিত ৭২০ নম্বরের মধ্যে ৬৯৫  পেয়েছেন।

শুধু বাসিতই নন, এনইইটির প্রবেশিকা পরীক্ষায় ভালো করেছেন পুলওয়ামার সুহেল মকবুল, ফয়জান হামেদ ভাট, সৈয়দ রইফ হামিদরা। তাঁরা সফলতার সঙ্গে প্রবেশিকা পরীক্ষা পাস করেছেন। আরো এক পুলওয়ামার বাসিন্দা ওয়াইস নাজির দার। তিনি পুলওয়ামা জেলা থেকে ভারতের জাতীয় স্তরের পরীক্ষা এএমই সিইটি (এয়ারক্রাফট মেইনটেন্যান্স ইঞ্জিনিয়ারিং কমন এন্ট্রান্স টেস্ট) পাস করেছেন।

পুলওয়ামার মীর মহসিন নামের এক শিক্ষার্থী কাশ্মীর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা পরীক্ষায় পদার্থবিজ্ঞানে শীর্ষস্থান দখল করেন। শিক্ষাক্ষেত্র ছাড়াও খেলাধুলায়ও ভালো করছে পুলওয়ামার বাসিন্দারা। তরুণ ক্রিকেটার উমির নাজির আইপিএল ২০২০-এর টুর্নামেন্টে দিল্লির হয়ে নেট বোলার নির্বাচিত হন।

অঞ্চলটিতে উৎপাদন ব্যবস্থার গতি বাড়াতেও নজর দিচ্ছে ভারত সরকার। স্থানীয় গণমাধ্যম বলছে, অঞ্চলটি শিগগিরই দেশের পেনসিল-শ্লেট উৎপাদনের কেন্দ্রবিন্দু হবে। এএনআইয়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পুলওয়ামায় নরম শ্লেটের পেনসিল তৈরি করা হচ্ছে। ভারতের বড় বড় পেনসিল তৈরির কম্পানিগুলো এখন পুলওয়ামার কাছ থেকে তাদের শ্লেট সংগ্রহ করছে।

কাশ্মীরে প্রথম ব্যবসা শুরু করা ব্যক্তিদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন মনজুর আহমদ এলাহী। তিনি ২০১০ সাল থেকে ব্যবসা শুরু করেন কাশ্মীরে। তিনি বলেন, ‘প্রথমে ব্লক তৈরি করে পরে শ্লেট তৈরির জন্য মেশিন পেয়েছি। এর জন্য পোপলার কাঠ ব্যবহার করা হয়। এটি কাশ্মীরে প্রচুর পরিমাণে জন্মে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার কারখানায় দেড় শতাধিক কর্মচারী; নারী-পুরুষ উভয়েই কাজ করছেন।’

পুলওয়ামার জেলা শিল্প কেন্দ্রের (ডিআইসি) মহাব্যবস্থাপক জহুর মাগরে বলেন, পুলওয়ামা জেলায় ১৭টি শ্লেট-পেনসিল কারখানা রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি সংগঠিত খাতে আর ছয়টি অসংগঠিত খাতে। তিনি বলেন, ‘আমি যদি পুরো দেশের বিবরণ দিই তাহলে বলব, ৯০ শতাংশ শ্লেট সরবরাহ করা হয় কাশ্মীর উপত্যকা থেকে। আর ৮০ শতাংশ কাঁচামাল পুলওয়ামা থেকে সরবরাহ করা হয়।’ সূত্র : ইন্ডিয়া ব্লুম।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা