kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৬ নভেম্বর ২০২০। ১০ রবিউস সানি ১৪৪২

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ২০২০

মার্কিন ভোটারদের তথ্য রাশিয়া-ইরানের হাতে!

অভিযোগ অস্বীকার করেছে মস্কো-তেহরান

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৩ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মার্কিন ভোটারদের তথ্য রাশিয়া-ইরানের হাতে!

মার্কিন ভোটারদের তথ্য রাশিয়া ও ইরান হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান জন র‌্যাটক্লিফে। তাঁর ভাষ্য, ইরান থেকে মার্কিন ভোটারদের লক্ষ্য করে বিভিন্ন ভুয়া বার্তা পাঠানো হচ্ছে। নানাভাবে ভয়ভীতিও দেখানো হচ্ছে ভোটারদের। হ্যাকাররা ট্রাম্পের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেও মনে করেন র‌্যাটক্লিফে।

রাশিয়া ও ইরান এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। এ ছাড়া অভিযোগের ব্যাখ্যা জানতে এরই মধ্যে ‘মার্কিন রাষ্ট্রদূতকে’ তলব করেছে ইরান।

গত বুধবার গণমাধ্যমের সামনে র‌্যাটক্লিফে যখন রাশিয়া ও ইরানের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ তোলেন, তখন পাশে এফবিআই পরিচালক ক্রিস্টোফার রে দাঁড়িয়ে ছিলেন। র‌্যাটক্লিফে জানান, ইরানের হ্যাকাররা যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে থেকে নিবন্ধিত ভোটারদের কাছে ভুয়া ভিডিও বার্তা পাঠাচ্ছে। ভুয়া ব্যালট পেপারও পাঠানো হচ্ছে অনেকের কাছে। মার্কিন গোয়েন্দা প্রধানের অভিযোগ, রাশিয়া ও ইরান এমন সব ভুয়া তথ্য পাঠাচ্ছে, যাতে করে ভোটাররা সংশয়ে পড়ে যান, ভয় পান কিংবা তাঁদের আত্মবিশ্বাস কমে যায়।

‘প্রাউড বয়েস’-এর মতো বিভিন্ন মার্কিন ডমেইন ব্যবহার করে এসব ভুয়া বার্তা ছড়ানো হচ্ছে। উদাহরণ হিসেবে র‌্যাটক্লিফে বলেন, একটি বার্তায় লেখা ছিল, ‘আপনি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ভোট দেবেন। না দিলে আমরা আপনার পিছু ছাড়ব না।’ মেইলে আরো লেখা ছিল, ‘আপনি আপনার পছন্দের দলের নাম পাল্টে রিপাবলিকান করুন। তাহলে আমরা বুঝতে পারব, আপনি আমাদের বার্তা পেয়েছেন এবং আমাদের প্রস্তাবে রাজি হয়েছেন। পরবর্তী সময়ে আমরা এটাও জানতে পারব যে আপনি কাকে ভোট দিয়েছেন।’ মেইলে শুভ কামনা জানানোর আগে লেখা রয়েছে, ‘আপনার জায়গায় আমি হলে অবশ্যই বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করতাম।’

 রাশিয়া কিংবা ইরান কিভাবে মার্কিন ভোটারদের তথ্য হাতে পেল, সে বিষয়ে কোনো ব্যাখ্যা দেননি র‌্যাটক্লিফে বা ক্রিস্টোফার রে। যদিও মার্কিন ভোটারদের তথ্য পাওয়া খুব জটিল বিষয় নয়। অনেক রাজ্যের ভোটারদের তথ্য চাইলে যেকোনো ব্যক্তিই দেখতে পারেন। কিছু রাজ্যে ভোটারদের তথ্য শুধু রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য উন্মুক্ত থাকে।

মার্কিন ভোটারদের তথ্য হাতিয়ে নেওয়া কিংবা নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ অস্বীকার করেছে রাশিয়া। গতকাল ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রতিদিনই অভিযোগের পর অভিযোগ তোলা হচ্ছে। এসব অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই।’

এদিকে অভিযোগের ব্যাখ্যা জানতে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে ইরান। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খতিবজাদেহ বলেন, ‘নিজেদের অব্যবস্থাপনা আড়াল করতে যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিহীন এসব অভিযোগ তুলছে।’

উল্লেখ্য, ইরানে যুক্তরাষ্ট্রের কোনো দূত নেই। সেখানে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত বিভিন্ন বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করে থাকেন।

সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা