kalerkantho

শুক্রবার । ৭ কার্তিক ১৪২৭। ২৩ অক্টোবর ২০২০। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

‘মহামারিতে নারীর সুরক্ষায় ব্যর্থ বেশির ভাগ দেশ’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘মহামারিতে নারীর সুরক্ষায় ব্যর্থ বেশির ভাগ দেশ’

চলমান করোনা মহামারিতে নারীদের সুরক্ষায় বেশির ভাগ দেশ ব্যর্থ হয়েছে বলে জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এতে ২০৬টি দেশে-অঞ্চলে নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংসতা, গৃহকর্মীদের সহযোগিতা ও নারীর অর্থনৈতিক নিরাপত্তার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) হিসাবে, ৪২টি দেশে নারী ও কন্যাশিশুর প্রতি সহিংসতা রোধে কোনো নীতি গ্রহণ করা হয়নি। আবার গৃহস্থালি কাজের সঙ্গে যুক্তদের সহযোগিতা কিংবা নারীর অর্থনৈতিক ভিত গঠনেও কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। মাত্র ২৫টি দেশে এসব বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যুক্তরাজ্যের মতো দেশে সহিংসতা রোধে ব্যবস্থা নেওয়া হলেও নারীদের অর্থনৈতিক সহযোগিতায় নজর দেওয়া হয়নি।

মহামারিতে পারিবারিক সহিংসতা অন্য সময়ের চেয়ে অনেক বেড়েছে। অবশ্য ১৩৫টি দেশ এমন অপরাধ মোকাবেলায় হেল্প লাইন বা আশ্রয়কেন্দ্র খুলেছে। স্কুল বন্ধ হওয়ায় ৬১টি দেশে নারীদের কাজের চাপ কমেছে, বয়স্করা আইসোলেশনে থাকার সুযোগ পেয়েছেন।

চলতি মাসের শুরুতে জাতিসংঘ জানায়, মহামারিতে নারীদের মাঝে দারিদ্র্যের হার আগের চেয়ে ৯.১ শতাংশ বেড়েছে। আর জুলাইতে ম্যাকিয়েন্সি গ্লোবাল ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে বলা হয়, পুরুষের তুলনায় নারীদের চাকরি পাওয়ার সুযোগ আগের চেয়ে ১.৮ গুণ কঠিন হয়েছে। কিন্তু লৈঙ্গিক সমতা নিশ্চিত করা গেলে জিডিপিতে আরো ১৩ ট্রিলিয়ন ডলার যোগ হতো।

ইউএনডিপির প্রধান আসিম স্টাইনার বলেন, করোনা সংকটে সামাজিক নিরাপত্তা ও লৈঙ্গিক সমতা বিধানে নতুন সুযোগ তৈরি হয়েছে। ইউএনডিপির এই প্রতিবেদন দেখে দেশগুলো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে পারবে।

এদিকে করোনাভাইরাস মৌসুমি সংক্রমণে পরিণত হতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লিউএইচও) ইউরোপ অঞ্চলের পরিচালক হ্যান্স ক্লুগ। তিনি সোমবার বার্তা সংস্থা তাসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে করোনাভাইরাসকে ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাস গ্রুপের সমগোত্রীয় উল্লেখ করে বলেন, ‘সেই হিসাবে এটি মৌসুমি সংক্রমণ ব্যাধিতে পরিণত হতে পারে। একজন আশাবাদী হিসেবে আমার নীতি হলো, আমি সবচেয়ে ভালোটাই আশা করি। কিন্তু সবচেয়ে খারাপটার জন্যও প্রস্তুত থাকি।’

বৈশ্বিক পরিসংখ্যান ভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাবে, গতকাল পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা তিন কোটি ৩৭ লাখ ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে সেরে উঠেছে দুই কোটি ৪৮ লাখেরও বেশি রোগী। আর প্রাণহানি হয়েছে প্রায় ১০ লাখ ১০ হাজার মানুষের। সূত্র : গার্ডিয়ান, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা