kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

১৫ বছরের ১০ বছরই আয়কর দেননি ট্রাম্প!

আজ প্রথম টেলিভিশন বিতর্কের আগে কর ফাঁকি দেওয়ার এই খবর বিপাকে ফেলেছে ট্রাম্পকে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১৫ বছরের ১০ বছরই আয়কর দেননি ট্রাম্প!

গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছরই আয়কর দেননি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর ২০১৬ সালে অর্থাৎ যে বছর তিনি প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য ভোটে লড়েন এবং এর পরের বছর ২০১৭ সালে তিনি মাত্র ৭৫০ ডলার করে আয়কর দিয়েছেন। নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস জানায়, তারা ১৯৯০-এর দশক থেকে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত এবং তাঁর কম্পানির গত কয়েক দশকের আয়করবিষয়ক নথিপত্র জোগাড় করেছে। তাতে দেখা যায়, ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছরই তিনি কোনো আয়কর দেননি। নথিপত্রে ‘ধারাবাহিক লোকসান’ উল্লেখ করা রয়েছে বলে দেখা যাচ্ছে। তিনি আয়ের চেয়ে অনেক বেশি লোকসান দেখিয়েছেন।

আগামী ৩ নভেম্বর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোট। নির্বাচন সামনে রেখে প্রথম টেলিভিশন বিতর্কে রিপাবলিকান প্রার্থী ট্রাম্প আজ মঙ্গলবার তাঁর ডেমোক্র্যাট প্রতিপক্ষ জো বাইডেনের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন। এর আগে আগে ট্রাম্পের কর ফাঁকি দেওয়ার এই খবর প্রকাশ পেল। এ নিয়ে বিরোধীরা ট্রাম্পের কড়া সমালোচনা করছে। আজকের বিতর্কে জো বাইডেন এ বিষয়টি নিয়ে ট্রাম্পকে একচোট দেখে নেবেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

অবশ্য ট্রাম্প নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনকে ‘ফেক নিউজ’ বা ভুয়া খবর বলে আখ্যা দিয়েছেন। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আমি আসলে আয়কর দিয়েছি। আমার ট্যাক্স রিটার্ন শেষ হলেই আপনারা তা দেখতে পাবেন। আমার আয়করের হিসাব-নিকাশ চলছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আইআরএস (ইন্টারনাল রেভিনিউ সার্ভিস) আমাকে একেবারেই ভালো চোখে দেখে না। ওরা আমার সঙ্গে খুব খারাপ আচরণ করে।’

নিজের ব্যবসা ও সম্পদ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দিতে অস্বীকার করায় ট্রাম্প এর আগে মামলার মুখে পড়েছেন। ১৯৭০ সালের পর থেকে তিনিই প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট, যিনি নিজের আয়করবিষয়ক তথ্য প্রকাশ করেননি। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে এ বিষয়ে কোনো আইন নেই, তবে প্রেসিডেন্ট ও নির্বাচনে প্রার্থীরা স্বচ্ছতার জন্য নিজেদের আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করে থাকেন।

প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার আগে রাজনীতি নয়, ডোনাল্ড ট্রাম্পের পরিচয় ছিল যুক্তরাষ্ট্রের একজন প্রভাবশালী তারকা ব্যবসায়ী হিসেবে। তিনি একজন ‘রিয়েল এস্টেট টাইকুন’ হিসেবে পরিচিত। বিলাসবহুল গলফ কোর্স ও হোটেলের মালিক তিনি। ট্রাম্প ব্যক্তিগতভাবে ৩০ কোটি ডলার ঋণ নিয়েছেন। ট্রাম্পের প্রতিপক্ষরা তাঁর কড়া সমালোচনা করছেন। হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বলেছেন, ‘কর ফাঁকি দেওয়ার নানা নিয়ম নিয়ে ট্রাম্প বেশ ভালোই খেলেছেন। কর ফাঁকি দিতে তিনি অভিনব পন্থা অবলম্বন করেছেন।’ সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা