kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ কার্তিক ১৪২৭। ২২ অক্টোবর ২০২০। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

যুক্তরাষ্ট্রকে চীন

যথেষ্ট হয়েছে, আর সহ্য করা হবে না

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যথেষ্ট হয়েছে, আর সহ্য করা হবে না

করোনা মহামারি নিয়ে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের কূটনীতিকদের মধ্যে বেশ উচ্চবাচ্য হয়েছে। একপর্যায়ে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে চীনের রাষ্ট্রদূত বলেছেন, ‘যথেষ্ট হয়েছে আর সহ্য করা হবে না।’ এর আগে কঠোর ভাষায় চীনের সমালোচনা করেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত।

দুই দিন আগে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার সময় করোনা মহামারি ইস্যুতে চীনের কঠোর সমালোচনা করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে চীনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান। এরপর গত বৃহস্পতিবার রাতে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকেও একই সুরে কথা বলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেলি ক্রাফট। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে তিনি বলেন, ‘আপনাদের প্রত্যেকের লজ্জা হওয়া উচিত। আজকের আলোচনার বিষয়বস্তু দেখে আমি অবাক ও বিরক্তবোধ করছি।’ তিনি আরো বলেন, ‘যেসব সদস্য রাষ্ট্র গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু বাদ দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল করতে চায়, তাদের কারণে এই কাউন্সিলে আমার লজ্জাবোধ হয়।’

অধিবেশনের পর অনেক কূটনীতিক বলেন, মার্কিন রাষ্ট্রদূতের এমন মন্তব্যে তাঁরাও অবাক হয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘সংকট নিয়ে মোটামুটি সব দেশ একটা ঐকমত্যে পৌঁছেছিল। কিন্তু পরের অধিবেশনে ক্রাফটের বক্তব্য ছিল খুবই মারমুখী।’

বক্তব্য দেওয়ার পরই ভিডিও কনফারেন্স থেকে বেরিয়ে যান ক্রাফট। এরপর চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং জুন বক্তব্য দেন। তাঁর বক্তব্য ছিল অনেকটা আক্রমণাত্মক। যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে ঝাং বলেন, ‘আমাকে বলতেই হচ্ছে যে যথেষ্ট হয়েছে। আর সহ্য করা হবে না। আপনাদের কারণে এরই মধ্যে বিশ্বে অনেক সংকট তৈরি হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে এরই মধ্যে শনাক্ত করোনা রোগীর সংখ্যা ৭০ লাখের কাছাকাছি। মৃতের সংখ্যা দুই লাখের বেশি। বিশ্বের সর্বাধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থা ও প্রযুক্তি থাকার পরও কেন সেখানে সর্বোচ্চ শনাক্ত ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটল? করোনা মহামারির জন্য কাউকে জবাবদিহির আওতায় নিতে হলে যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকজন রাজনীতিককেই নিতে হবে।’

যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে চীনের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘বিশ্বের পরাশক্তির আচরণ পরাশক্তির মতোই হওয়া উচিত।’ যুক্তরাষ্ট্র বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ট্রাম্পের ভাষণের আগের দিন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ দেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং। তবে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে আক্রমণাত্মক কোনো শব্দ কিংবা বাক্য তিনি ব্যবহার করেননি। বরং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় চীনের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন চিনপিং। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা