kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ কার্তিক ১৪২৭। ২২ অক্টোবর ২০২০। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

থাইল্যান্ডে বিক্ষোভ

রাজতন্ত্রবিরোধী ফলক বসাল সংস্কারপন্থীরা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজতন্ত্রবিরোধী ফলক বসাল সংস্কারপন্থীরা

থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে গতকাল সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলাকালে পুলিশের একদম কাছাকাছি চলে যান স্টুডেন্ট ইউনিয়ন অব থাইল্যান্ডের মুখপাত্র পানুসায়া সিথিজিরাওয়াত্তানাকুল। ছবি : এএফপি

দেশের মালিক জনগণ, রাজা নয়—এমন ঘোষণাসংবলিত এক ফলক স্থাপন করা হয়েছে থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককে গ্র্যান্ড প্যালেসের পাশের ময়দানে। সরকারবিরোধী হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে গতকাল রবিবার সেটি স্থাপন করে আন্দোলনকারীদের একাংশ।

প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুত চান-ও-চা এবং তাঁর সরকারের পদত্যাগের দাবিতে দুই মাস ধরে উত্তাল ব্যাংকক। সরকার পতনের দাবিতে চলমান ওই আন্দোলনের সামনের সারিতে আছে থাইল্যান্ডের শিক্ষার্থী ও তরুণ জনগোষ্ঠী।

গত শনিবার সরকারবিরোধী আন্দোলনকারীরা রাজধানীর গ্র্যান্ড প্যালেসের পাশের সানাম লুয়াং ময়দানে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করে। সরকারপক্ষের মতে, বিক্ষোভকারীর সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার। তবে সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, সংখ্যাটি ৩০ হাজারের কম নয়। প্রায়ুত চান-ও-চা ২০১৪ সালের অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসার পর গত শনিবারই সর্বোচ্চসংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে ওই বিক্ষোভ হয়, এমনটা জানায় বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

গত শনিবারের ওই বিক্ষোভে সংস্কারকামী আন্দোলনকারীরা আহ্বান জানায়, থাই রাজপরিবার যেন রাজনীতিতে নাক না গলায়। গতকাল রবিবার আরো কঠোর পদক্ষেপ নেয় বিক্ষোভকারীরা। সানাম লুয়াং ময়দানে তারা পিতলের একটি ফলক স্থাপন করে। তাতে লেখা, ‘এ দেশ জনগণের, রাজার নয়। সেই অভিপ্রায় জনগণ প্রকাশ করেছে।’

থাইল্যান্ডের তরুণ আন্দোলনকারীরা জনগণের প্রতি রাজপরিবারের ভূমিকাকে খোলাখুলি প্রশ্নবিদ্ধ করে চলেছে। গতকাল ফলক স্থাপনের মধ্য দিয়ে রাজপরিবারের ব্যাপারে তারা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিল, এমনটা মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা।

থাইল্যান্ডে আগেও ফলক স্থাপনের ঘটনা ঘটেছে। দেশটিতে ১৯৩২ সালে রাজতন্ত্রের একাধিপত্য খর্ব হওয়ার স্মৃতি ধরে রাখতে ব্যাংককের রয়াল প্লাজা প্রাঙ্গণে স্থাপন করা হয় সেই ফলক। বর্তমান থাই রাজা মহা ভাজিরালংকর্ন ২০১৭ সালে সিংহাসনে আরোহণ করার পর ওই ফলক রহস্যজনকভাবে উধাও হয়ে যায়। এর পরিবর্তে বসিয়ে দেওয়া হয় এমন এক ফলক, যাতে রাজপরিবারের প্রতি জনগণকে অনুগত থাকার আহ্বান জানানো হয়। সেই আহ্বান এবং রাজপরিবারের আধিপত্য উপেক্ষা করে গতকাল স্থাপন করা হয়েছে আরেকটি ফলক।

বিশ্লেষক পল চেম্বারসের মতে, নতুন এই ফলক রাজপরিবারের বিরুদ্ধে ‘সরাসরি চ্যালেঞ্জ’ হিসেবে গণ্য হবে। সংস্কারপন্থীদের ক্ষোভের তীব্রতা দ্রুত বাড়তে থাকলে তাদের দমাতে ‘রাষ্ট্রীয় সহিংসতা’ শুরু হয়ে যেতে পারে, এমন আশঙ্কা করছেন চেম্বারস। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা