kalerkantho

শুক্রবার । ৭ কার্তিক ১৪২৭। ২৩ অক্টোবর ২০২০। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

প্রাণ গেল সাড়ে ৯ লাখের

শনাক্ত তিন কোটি পেরিয়ে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শনাক্ত তিন কোটি পেরিয়ে

নভেল করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) মহামারিতে বিশ্বজুড়ে শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা গতকাল বৃহস্পতিবার তিন কোটি ছাড়িয়েছে। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহানে প্রথমবারের মতো মানবদেহে করোনা শনাক্ত হয়। এর সাড়ে আট মাসের মাথায় এসে নথিভুক্ত আক্রান্তের সংখ্যা তিন কোটি পেরোল। এরই মধ্যে রোগটিতে প্রাণ হারিয়েছে প্রায় সাড়ে ৯ লাখ মানুষ। আর সুস্থ হয়েছে দুই কোটি ২০ লাখেরও বেশি রোগী।

এর আগে গত ৯ আগস্ট শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা দুই কোটি ছাড়িয়ে যায়। অর্থাৎ মাত্র ৩৯ দিনের ব্যবধানে নথিভুক্ত সংক্রমিতের সংখ্যা এক কোটি বেড়েছে। বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের উপাত্ত বিশ্লেষণ করে করোনার এই চিত্র পাওয়া গেছে।

করোনা মহামারিতে বিভিন্ন দেশে লকডাউন জারির কারণে ভেঙে পড়েছে বৈশ্বিক অর্থনীতির চাকা। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে দেশগুলো কড়াকড়ি শিথিল করেছে। মহামারিকালে নতুন বাস্তবতার সঙ্গে খাপ খাওয়ার চেষ্টা করছে লোকজন। অনেক দেশ, বিশেষ করে ইউরোপ অঞ্চলে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও অল্প সময়ের মধ্যেই সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ দেখা দিয়েছে। সব মিলিয়ে নিরাপদ ও কার্যকর টিকার আশায় মুখিয়ে আছে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ।

গত বুধবার বিশ্বজুড়ে তিন লাখ আট হাজার ২৯৮ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়ে, যা এক দিনে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শনাক্তের সংখ্যা। এর আগে গত ১১ সেপ্টেম্বর সর্বাধিক তিন লাখ ১১ হাজার আক্রান্ত শনাক্ত হয়। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য বলছে, প্রথমবারের মতো ২৪ ঘণ্টায় লক্ষাধিক করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত ২০ মে। এর পর থেকে দৈনিক সংক্রমণ বেড়েই চলছিল। ২ জুলাই এসে প্রথমবারের মতো দুই লক্ষাধিক রোগী শনাক্ত হয়। এরপর বাড়তে বাড়তে সংক্রমণ তিন লাখের কোঠায় পৌঁছে ৪ সেপ্টেম্বর। অবশ্য সম্প্রতি বৈশ্বিক আক্রান্তে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা গেলেও মৃত্যুহার কমে আসছে। গত এপিলের শুরুতে এই হার সাড়ে ২২ শতাংশ হলেও তা ধারাবাহিকভাবে কমে বুধবার হয়েছে ৪.১৫ শতাংশ।

এদিকে প্রতিবেশী ভারতে গতকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছে আরো ৯৭ হাজার ৮৯৪ জন। এ নিয়ে দেশটিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৫১ লাখ ছাড়িয়ে গেল। এদিকে দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় নতুন করে আরো এক হাজার ১৩২ জন প্রাণ হারানোয় সেখানে মৃতের সংখ্যা বেড়ে মোট ৮৩ হাজার ১৯৮ জনে দাঁড়িয়েছে।

অন্যদিকে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস করোনাভাইরাসকে পরাজিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে গুতেরেস বলেন, বর্তমান বিশ্বে আজ ভাইরাসটি এক নম্বর নিরাপত্তা হুমকি। এই ভাইরাসকে পরাস্ত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের এক হওয়ার এখনই সময়।

তিনি আরো বলেন, অনেকেই ভ্যাকসিনের ওপর আশা করে বসে আছে। কিন্তু ভ্যাকসিন একা এই সমস্যার সমাধান করতে পারবে না। আগামী ১২ মাসে নতুন নতুন সংক্রমণ মোকাবেলা ও দমনে আমাদের নতুন ও বিদ্যমান পদ্ধতির ব্যাপক সম্প্রসারণ করতে হবে। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা