kalerkantho

সোমবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১০ সফর ১৪৪২

হঠাৎ নির্বাসনে বেলারুশের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



হঠাৎ নির্বাসনে বেলারুশের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী

নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনেছিলেন, নিজেকে জয়ী দাবি করেছিলেন, কিন্তু এরপর হঠাৎ দেশ ছেড়ে চলে গেলেন বেলারুশের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী সভেতলানা তিখানভস্কায়া। পরিস্থিতির শিকার হয়ে আচমকা নির্বাচনে অংশ নেওয়া ওই নারী এখন লিথুয়ানিয়ায় আছেন।

১৯৯৪ সাল থেকে বেলারুশের প্রেসিডেন্সি ধরে রেখেছেন আলেকজান্ডার লুকাশেংকো। এবারের নির্বাচনে তাঁর বিপক্ষে দাঁড়ানোর কথা ছিল দেশটির প্রখ্যাত ব্লগার সেরগেই তিখানভস্কায়ার। কিন্তু সরকার আইনের মারপ্যাঁচে ফেলে সেরগেইকে কারাবন্দি করে, সেই সঙ্গে তাঁর নির্বাচনে অংশগ্রহণের পথ রুদ্ধ করে দেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নেন সেরগেইর স্ত্রী সভেতলানা।

গত রবিবারের নির্বাচন শেষে দেখা যায়, সভেতলানা পেয়েছেন মাত্র ৯.৯ শতাংশ ভোট। সভেতলানার অভিযোগ, নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। এই ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করেন তিনি। এ ছাড়া গত সোমবার নিজেকে জয়ী দাবি করে শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য লুকাশেংকোর প্রতি আহ্বান জানান। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগে গত রবিবার থেকে বিক্ষোভ করছে সরকারবিরোধীরা।

এর মধ্যেই ইউটিউবে এক স্বল্পদৈর্ঘ্য ভিডিও বার্তা দেন সভেতলানা। ওই ভিডিওতে তাঁকে খুব বিধ্বস্ত দেখাচ্ছিল। এতে তিনি বলেন, ‘আমি কঠিন এক সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ আত্মসমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘আমি ভেবেছিলাম এই (নির্বাচনী) প্রচারের মধ্য দিয়ে আমি ইস্পাতকঠিন হয়ে উঠেছি এবং সব কিছুর সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়ার মতো শক্তিশালী হয়ে উঠেছি। কিন্তু আমার মনে হয়, আমি বরাবরের সেই দুর্বল নারীই রয়ে গেছি।’ দেশ ছেড়ে তিনি দুই সন্তানের কাছে যাচ্ছেন, এমনটা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের জীবনে সন্তানরাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।’ দেশের প্রতিকূল পরিস্থিতিতে সভেতলানার দুই সন্তানকে আগেই লিথুয়ানিয়া পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

সভেতলানা ভিডিও প্রকাশের আগে-পরের সময়ে কোথায় ছিলেন এবং এরপর তিনি কখন কিভাবে লিথুয়ানিয়ায় পৌঁছেছেন, তা এখনো স্পষ্ট জানা যায়নি। তবে লিথুয়ানিয়ার তার ‘নিরাপদে’ থাকার খবর গতকাল মঙ্গলবার নিশ্চিত করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা