kalerkantho

শনিবার । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭। ৮ আগস্ট  ২০২০। ১৭ জিলহজ ১৪৪১

ফের লকডাউনে লাখ লাখ মানুষ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফের লকডাউনে লাখ লাখ মানুষ

প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যাওয়ায় বিশ্বের নানা প্রান্তের লাখ লাখ মানুষ ফের অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। কোথাও কোথাও প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে আসার পর হঠাৎ করেই সংক্রমণের তীব্রতা দেখা যাচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডাব্লিউএইচও) মনে করছে, পরিস্থিতি দিনকে দিন আরো খারাপের দিকে যাচ্ছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স হিসাব করে দেখিয়েছে, গত পাঁচ দিনেই বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১০ লাখ লোক। তবে স্বস্তির খবর হলো, সংক্রমণে উল্লম্ফন হলেও মৃত্যুহার ধারাবাহিকভাবে কমে আসছে। এদিকে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নিরিখে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্রে গতকাল নথিভুক্ত রোগীর সংখ্যা ৩৫ লাখ ছাড়িয়েছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের জনবহুল অঙ্গরাজ্য ক্যালিফোর্নিয়া করোনা প্রাদুর্ভাব বাড়ায় ব্যাবসায়িক কার্যক্রম ও জনসমাগমের ওপর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। সেখানকার গভর্নর গ্যাভিন নিউজওম অবিলম্বে রেস্টুরেন্ট, বার, বিনোদনকেন্দ্র, চিড়িয়াখানা ও জাদুঘর বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। চার কোটি জনসংখ্যার এই অঙ্গরাজ্যে এরই মধ্যে তিন লাখ ৩০ হাজার বাসিন্দার শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। মারা গেছে সাত হাজার। দুই সপ্তাহ ধরে রাজ্যটিতে আগের তুলনায় ২০ শতাংশ সংক্রমণ বেড়েছে।

আফ্রিকা অঞ্চলে সংক্রমণ বাড়ায় সোমবার থেকে অবরুদ্ধদশা শুরু হয়েছে মরক্কোর উত্তরাঞ্চলীয় শহর তানজির। গত সপ্তাহে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে মাদাগাস্কারের আনালামাঙ্গা অঞ্চলে। আর দক্ষিণ আফ্রিকায় নতুন করে প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ায় ফের নৈশকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে।

‘পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে’ : এদিকে নতুন করে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সব দেশকে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য সতর্ক করেছে ডাব্লিউএইচও। সংস্থার প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রেয়েসুস সোমবার বলেছেন, ভুল পথে হাঁটছে বহুসংখ্যক দেশ। আর এই ভাইরাস গণমানুষের এক নম্বর শত্রু হয়ে থেকে যাচ্ছে।

বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাবে, গতকাল বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা পর্যন্ত বিশ্বের ২১৩টি দেশ-অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ৩৩ লাখ ছাড়িয়েছে। প্রাণহানি ছাড়িয়েছে পৌনে ছয় লাখ। এ সময়ে সুস্থ হয়েছে সাড়ে ৭৮ লাখেরও বেশি রোগী। সূত্র : বিবিসি, আলজাজিরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা