kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭। ১১ আগস্ট ২০২০ । ২০ জিলহজ ১৪৪১

পাকিস্তানে জনপ্রিয় হচ্ছে ‘মাইনাস ইমরান’ সূত্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পাকিস্তানে জনপ্রিয় হচ্ছে ‘মাইনাস ইমরান’ সূত্র

সেনাবাহিনীর ‘আশীর্বাদ’ নিয়েই পাকিস্তানের ক্ষমতায় আসেন ইমরান খান। তবে সম্প্রতি নানা ব্যর্থতায় ইমরানের আসন নড়ে গেছে। দূরত্ব বেড়েছে সেনাবাহিনীর সঙ্গেও। সেনাবাহিনী এখন আর ব্যর্থ ইমরান সরকারের সঙ্গে নিজেদের নাম দেখতে চায় না—এমন আলোচনা সম্প্রতি পাকিস্তানের গণমাধ্যমপাড়ায় ঘুরছে। এ নিয়ে খবর, প্রবন্ধ, নিবন্ধও কম প্রকাশ করা হয়নি।

করাচিতে স্টক এক্সচেঞ্জে বন্দুকধারীরা হামলা করে ২৯ জুন। এদিন বন্দুকধারী ও পুলিশের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এতে প্রাণ যায় চার হামলাকারীসহ ১৩ জনের। এ ঘটনায় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর প্রতিক্রিয়া যেন তৈরি করাই ছিল। ভারতকে দোষারোপ করার সুযোগ হাতছাড়া করেননি তিনি। বিষয়টি অনেকটা খড়কুটো ধরে নিজের আসন রক্ষার চেষ্টার মতো বলেই মত বিশ্লেষকদের।

অবাক হওয়ার কিছু নেই যে পাকিস্তানের যেকোনো ঘটনার জন্য ভারতকে দোষারোপ করা দেশটির নেতাদের যেন পছন্দের বিষয়। আগেও এমনটাই দেখা গেছে। বর্তমানেও এমনটাই হচ্ছে। পাকিস্তানে কোনো ধরনের ঘটনা ঘটলেই দোষ চাপানো হয় ভারতের ঘাড়ে। বিশেষত তারা যখন অন্য কারো ওপর দোষ চাপাতে ব্যর্থ হয়।

সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতে বছরের পর বছর ধরে পাকিস্তানি নেতারা এ ধরনের কৌশল ব্যবহার করে আসছেন। তাঁরা এই কৌশলগুলো ব্যবহার করে সমস্যা থেকে সাধারণের দৃষ্টি সরিয়ে নেন। ইমরান খানও ভিন্ন নন। আসলে ভারতের বিরুদ্ধে এ রকম অমূলক ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করার সময় দেশটিতে আর সব সংকটের দিক থেকে জনগণের দৃষ্টি অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া সহজ হয়।

ইমরান খানের ক্ষমতায় আসার পর রাজনীতি ও অর্থনীতি পরিচালনার ক্ষেত্রে কৌশলগুলো ‘আলাদা’ বলে জানিয়েছেন বিশ্বের অনেক সমালোচকই। যা হোক তাঁরাই এখন ইমরান খানের বিরুদ্ধে কথা বলছেন। ন্যাবকে (ন্যাশনাল অ্যাকাউন্ট্যাবিলিটি ব্যুরো) (ভুল) ব্যবহার করেও তিনি দুর্নীতিবাজদের বিচারের মুখোমুখি করতে ব্যর্থ হয়েছেন। বর্তমানে তাঁকে ঘিরেই বসে রয়েছেন দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবিদরা। তাঁদের অনেকেই তাঁর মন্ত্রিসভায় মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বও পালন করছেন।

ইমরান খানের মধ্যে পূর্বসূরিদের আচরণই লক্ষ করেছেন তাঁর বহু স্পষ্টবাদী সমর্থক। তাঁদেরই একজন হলেন এরশাদ ভাট্টি। উর্দু ভাষার গণমাধ্যমে কয়েক দিন আগে তিনি একটি নিবন্ধ লিখেছিলেন। সেখানে তিনি লেখেন, ইমরান খান সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। হাসান নিসার নামের এক সমালোচকও ইমারন খানকে একসময় ব্যাপক সমর্থন দিতেন; কিন্তু বর্তমানে তিনিও মুখ ঘুরিয়ে নিলেন।

দেশটির বিরোধী দলগুলো ইমরান খানের অপসারণের দাবি জানাচ্ছে। ওসামা বিন লাদেনকে শহীদ আখ্যা দিয়েও তিনি ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েন। তারা বর্তমান সরকারের বাজেটকে দরিদ্রবিরোধী, জনবিরোধী বলে সমালোচনা করছে। তাদের এই সমালোচনায় সমর্থন দিচ্ছে দেশটির হাজারো সাধারণ জনগণ। সূত্র : ইনস্টিটিউট ফর ডিফেন্স স্টাডিজ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা