kalerkantho

বুধবার । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭। ১২ আগস্ট ২০২০ । ২১ জিলহজ ১৪৪১

করোনা মোকাবেলা

নেতৃত্ব ও সংহতির অভাবই দায়ী : ডাব্লিউএইচও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১১ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নেতৃত্ব ও সংহতির অভাবই দায়ী : ডাব্লিউএইচও

করোনা মহামারি মোকাবেলায় নেতৃত্বের অভাবের নিন্দা জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও)। সংস্থার প্রধান তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস বলেছেন, অনেক দেশে সংক্রমণ বাড়ছে। শনাক্তের ছয় মাস পার হওয়ার পরও ভাইরাসটিতে পর্যুদস্ত বিশ্ব। এই পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক সম্প্রীতি খুবই জরুরি।

বৃহস্পতিবার জেনেভায় আবেগঘন বক্তৃতায় ডাব্লিউএইচও মহাপরিচালক বলেন, ‘বন্ধুরা আমার, কোনো ভুল করবেন না। আমরা এখন যে বড় হুমকির মুখে পড়েছি তার জন্য শুধু ভাইরাস দায়ী নয়। বরং এর জন্য বৈশ্বিক ও জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব ও সংহতির অভাবই দায়ী।’

তেদ্রোস কাঁপাস্বরে বলেন, ‘এটি খুবই বেদনাদায়ক যে বর্তমান পরিস্থিতিতে আমরা অনেক বন্ধুকে মিস করতে বাধ্য হচ্ছি, অনেকে প্রাণ হারাচ্ছে। বৈশ্বিক যে বিভক্তি দেখা যাচ্ছে তা দিয়ে আমরা এই মহামারিকে পরাজিত করতে পারব না।’

করোনা প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে ডাব্লিউএইচও ব্যর্থ বলে সম্প্রতি অভিযোগ তোলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি এও অভিযোগ করেন, ডাব্লিউএইচও চীনঘেঁষা। এই কারণে সংস্থাটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক ছিন্ন করার উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পসহ বিশ্বের অনেক নেতা নিজ দেশের করোনা পরিস্থিতি তো নিয়ন্ত্রণ করতেই পারেননি, ক্ষেত্রবিশেষে বিভক্তি সৃষ্টি করছেন।

নাগরিকদের অস্ট্রেলিয়ায় ফেরায় বিধি-নিষেধ : সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মেলবোর্নে করোনার প্রকোপ দেখা দেওয়ায় দেশে ফিরতে ইচ্ছুক নাগরিকদের সংখ্যায় সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, এখন দিনে আট হাজারের মতো নাগরিক দেশে ফেরে। আগামী সোমবার থেকে দিনে সর্বোচ্চ চার হাজার জন দেশে আসতে পারবে।

তিনি বলেন, মেলবোর্নের পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে এই সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সেখানে রেকর্ড ২৮৮ জন শনাক্ত হয়েছে।

হংকংয়ে বন্ধ হচ্ছে স্কুল : হঠাৎ করে হংকংয়ে স্থানীয় সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় আগামী সোমবার থেকে সব স্কুল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। গতকাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে, যার মধ্যে ৩২ জনই স্থানীয়ভাবে সংক্রমিত।

বিশ্ব পরিস্থিতি : বৈশ্বিক পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসাবে, গতকাল বিশ্বের ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে সোয়া এক কোটিতে। প্রাণহানির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে পাঁচ লাখ ৬০ হাজারে। এই সময়ে সুস্থ হয়েছে ৭৩ লাখ রোগী। সূত্র : সিএনএন, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা