kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভে অশান্ত বিশ্ব

মহামারির সতর্কতা মানছে না কেউ, চরম বিপর্যয়ের আশঙ্কা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভে অশান্ত বিশ্ব

যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকে ঘিরে জ্বলে ওঠা ক্ষোভের আগুন থেকে বর্ণবাদের বিরুদ্ধে নতুন করে বিক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে বিশ্বের মানুষ। গত শুক্রবার বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাস সতর্কতা উপেক্ষা করে মানুষ রাস্তায় নেমে এসেছে। নিজ নিজ দেশে সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে বর্ণবৈষম্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে তারা। বিক্ষোভকারীদের অনেকের মুখে মাস্ক দেখা গেলেও সমাবেশে শারীরিক দূরত্ব রাখার সতর্কতা মানার বালাই ছিল না।

এদিন সবচেয়ে বড় বিক্ষোভটি হয়েছে জার্মানিতে। ফ্রাংকফুর্ট ও হামবুর্গে বিক্ষোভে জড়ো হয় ১০ হাজারের বেশি মানুষ। হাত তুলে, ব্যানার উড়িয়ে বিক্ষোভ করেছে তারা। ব্যানারে লেখা ছিল : ‘তোমার যন্ত্রণা, আমারও যন্ত্রণা; তোমার লড়াই, আমারও লড়াই’ স্লোগান। অনেকের মুখেই ছিল মাস্ক।

লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারে বিক্ষোভকারীরা ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারস’ আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে এক হাঁটু গেড়ে বসে প্রতিবাদ জানায়। এ ক্ষেত্রে একই কথা প্রযোজ্য, বিক্ষোভকারীরা মাস্ক পরেছে কিন্তু দূরত্ব বজায় রাখেনি।

অস্ট্রেলিয়ায় বিক্ষোভকারীরা ক্যানবেরার পার্লামেন্ট ভবন অভিমুখে পদযাত্রা করেছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গেছে সেই বিক্ষোভের দৃশ্য। কর্তৃপক্ষ করোনাভাইরাসের কারণে এ পদযাত্রা রুখে দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ায় আদিবাসীদের ওপর নিপীড়ন নিয়ে অসন্তোষ আছে। বিক্ষোভকারীরা পুলিশ কাস্টডিতে আদিবাসী মৃত্যুর প্রতিবাদ জানিয়েছে। পাশপাশি যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লয়েড হত্যা নিয়ে বিক্ষোভের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। অস্ট্রিয়ায় বিক্ষোভকারীরা যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে জড়ো হয়ে বর্ণবাদবিরোধী স্লোগান লেখা ব্যানার নিয়ে বিক্ষোভ করেছে। ওদিকে নরওয়েতেও করোনাভাইরাস ঠেকাতে বড় ধরনের জনসমাগমের ওপর জারি থাকা নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে।

নরওয়ের পার্লামেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে সামাজিক দূরত্ব বিধি উপেক্ষা করে জড়ো হয় কয়েক হাজার মানুষ। তবে তাদের মুখে ছিল মাস্ক। এ ছাড়া নেদারল্যান্ডস, লাইবেরিয়া, ইতালি, কানাডা ও গ্রিসেও মানুষ শুক্রবার বিক্ষোভ কর্মসূচি নিয়েছে। আরো কয়েকটি দেশে গতকাল শনিবার বিক্ষোভের পরিকল্পনা ছিল।

ফ্রান্সের পুলিশ করোনাভাইরাস ও সামাজিক বিশৃঙ্খলার যুক্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে শনিবারের বিক্ষোভ কর্মসূচি নিষিদ্ধ করেছে।

‘ওপর থেকে দেখে ফ্লয়েড বলছে এটা দারুণ দিন!’

ফ্লয়েডকে নিয়ে মন্তব্য করে ফের বিতর্কের সূত্রপাত ঘটালেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হোয়াইট হাউস থেকে টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এক সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন, ‘গত সপ্তাহে কী ঘটেছে, আমরা সবাই দেখেছি। এসব আমরা হতে দিতে পারি না। আশা করি, জর্জ এখন ওপর থেকে সব দেখছেন। আর মনে মনে বলছেন, আমাদের দেশের জন্য এটা একটা দারুণ ব্যাপার হলো। আজ ফ্লয়েডের জন্য একটা দারুণ দিন।’ তাঁর এই মন্তব্য তীব্র সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সম্ভাব্য ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন তাঁর টুইটে ট্রাম্পের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন। বাইডেন তাঁর টুইটে লিখেছেন, “জর্জ ফ্লয়েডের শেষ কথাগুলো ছিল, ‘আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে।’ যা এখন শুধুই আমেরিকায় নয়, প্রতিধ্বনিত হচ্ছে সারা বিশ্বে। সেই ফ্লয়েডের মুখে যেভাবে নিজের মতো করে কথা বসিয়ে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট, তা ঘৃণার যোগ্য।” সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

মন্তব্য