kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

ফ্লয়েডের শিশুকন্যা

আমার বাবা তো দুনিয়াই বদলে দিল!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



আমার বাবা তো দুনিয়াই বদলে দিল!

শ্বেতাঙ্গ পুলিশের হাতে স্বামীর মৃত্যুর প্রায় আট দিন পর গত মঙ্গলবার প্রথমবার প্রকাশ্যে দেখা গেল তাঁকে। মাইক হাতে রক্সি ওয়াশিংটন। মিনেপলিসের সিটি হলে জর্জ ফ্লয়েডের স্মরণসভায় তখন উপচে পড়ছে ভিড়। মায়ের ঠিক পাশেই সাদা টপ পরা ফ্লয়েডের ছয় বছরের মেয়ে জিয়ানা। তার দিকে তাকিয়েই রক্সি ভাঙা গলায় বললেন, ‘মেয়েটা আমার চোখের সামনেই বড় হবে। একদিন গ্র্যাজুয়েটও হবে। কিন্তু জর্জের কিছুই দেখা হলো না।’

ছোট্ট জিয়ানা চুপ। ডায়াস ছেড়ে আসা মাকে জড়িয়ে ধরে একবার শুধু চোখ বুজল সে। তারপর হল থেকে বেরিয়ে এলো বাবার বন্ধু, সাবেক বাস্কেটবল তারকা স্টিফেন জ্যাকসন সিনিয়রের হাত ধরে। রাস্তায় নেমে চাপল কাঁধে। মুখখানা উজ্জ্বল, হাসি হাসি। ‘তোমার বাবা কী করেছিল, তুমি জানো?’—ক্যামেরার পেছন থেকে একজন প্রশ্ন ছুড়লেন খুদে মেয়েটির দিকে। এবার আরো ঝকঝকে জিয়ানা সটান উত্তর দিল—‘আমার বাবা তো দুনিয়াই বদলে দিল!’ এই ক্লিপ ভাইরাল হতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একজন বললেন, ‘আট দিনেই যেন অনেকটা বড় হয়ে গেল মেয়েটা।’

‘খুনি’ পুলিশের শাস্তি চেয়ে কয়েক দিন ধরে প্রতিবাদে ফুঁসছে যুক্তরাষ্ট্র। কারফিউ মোড় দেশের প্রায় সব বড় শহর সাক্ষী থেকেছে বিক্ষোভের। চলেছে ধরপাকড়, সংঘর্ষ। ন্যাশনাল গার্ড নেমেছিল আগেই। বিক্ষোভ ঠেকাতে সেনা নামানোর হুমকিও দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। হিউস্টনে জর্জের স্মরণ-মিছিলে প্রায় ৬০ হাজার মানুষ হাঁটল। কিশোর বয়সে মার্টিন লুথার কিংয়ের সঙ্গে পা মেলানো বৃদ্ধ বিল লসন হাঁক দিলেন, ‘এই ভিড় থেকেই চিৎকার উঠুক। অনেক দিন তো মুখ বুজেই থাকলাম!’ সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা