kalerkantho

বুধবার । ৩১ আষাঢ় ১৪২৭। ১৫ জুলাই ২০২০। ২৩ জিলকদ ১৪৪১

করোনা মোকাবেলা প্রসঙ্গে সুইডেন

আরো কঠোর হওয়া উচিত ছিল

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ জুন, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



প্রাণঘাতী নতুন করোনাভাইরাস মোকাবেলায় আরো বিধি-নিষেধ আরোপ করা উচিত ছিল বলে স্বীকার করেছেন সুইডেনের মহামারি বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা। দেশটিতে লকডাউন নীতি না নেওয়ার পেছনে সুইডেনের রাষ্ট্রীয় এপিডেমিওলজিস্ট আন্দেস টেগনেলই প্রধান ভূমিকা পালন করেছেন বলে মনে করা হয়।

কয়েক মাস ধরে ভাইরাস মোকাবেলায় নিজের পদ্ধতিকে ‘বেশি টেকসই’ অভিহিত করে আসা টেগনেল বিভিন্ন দেশে লকডাউন পদ্ধতির সমালোচনাও করেছিলেন। গতকাল বুধবার সকালে সুইডেনের সভেরিয়াস রেডিওকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে টেগনেল দেশটিতে কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ না করায় বিপুলসংখ্যক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে স্বীকার করে নেন।

তিনি বলেন, ‘আজ আমরা যা জানি, তার ভিত্তিতেই যদি এ রোগের মুখোমুখি হতে হয়, তাহলে সুইডেন এত দিন যা করেছে এবং বাকি বিশ্ব যা করেছে, আমরা এ দুইয়ের মাঝামাঝি অবস্থান নিতাম।’ জনসংখ্যার ভিত্তিতে সুইডেনে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সংখ্যা তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল পর্যন্ত দেশটির ৩৮ হাজার ৫৮৯ জনের দেহে কভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে; মৃত্যু হয়েছে চার হাজার ৪৬৮ জনের। অথচ সুইডেনের প্রতিবেশী নরওয়ে, ডেনমার্ক ও ফিনল্যান্ডের মতো দেশগুলোতে নতুন করোনাভাইরাসে ৬০০ জনেরও কম মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এসব দেশ করোনাভাইরাস মোকাবেলায় প্রথম থেকেই কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করেছিল। মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া নভেল করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ইউরোপের বিরাট অংশ যখন লকডাউনে, তখন উল্টো চিত্র ছিল সুইডেনে। লকডাউন বা এর কাছাকাছি কোনো কঠোর বিধি-নিষেধের শরণ নেয়নি দেশটির কর্তৃপক্ষ। সূত্র : বিবিসি, এএফপি

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা