kalerkantho

শনিবার । ২০ আষাঢ় ১৪২৭। ৪ জুলাই ২০২০। ১২ জিলকদ  ১৪৪১

দ্বিতীয় মেয়াদের বছরপূর্তিতে মোদির চিঠি

‘সাংঘাতিকভাবে ভুগতে হচ্ছে’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৩১ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারতে করোনাভাইরাসের সংকটকে সঙ্গে নিয়েই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় মেয়াদের এক বছর পূর্ণ হয়ে গেল। এই পরিস্থিতিতে তিনি জাতির উদ্দেশে একটি চিঠি লিখে নিজের বার্তা দিয়েছেন। গত বছর অনেকগুলো ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবং দ্রুত অগ্রগতির দিকে এগোনোর চেষ্টা করা হলেও হঠাৎ করেই সব কিছুতে বাদ সেধেছে করোনাভাইরাস নামের মারাত্মক সংক্রামক রোগটি। দেশকে এক কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে বর্তমান পরিস্থিতি। আর এই করোনা সংকটের ফলে ‘সাংঘাতিকভাবে ভুগতে হচ্ছে’ দেশের পরিযায়ী শ্রমিকদের, দেশবাসীকে—এমনটাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। তবে শুধু পরিযায়ীরাই নয়, এই চরম সংকটে পুরো দেশই ভুক্তভোগী। কিন্তু হতাশার বার্তার মধ্যেও আশার আলো দেখিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বিশ্বাস করেন, ভারত এই অবস্থা থেকে অর্থনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে এবং পুরো বিশ্বকে অবাক করে দেবে।

নিজের চিঠিতে প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, ‘এ ধরনের মারাত্মক সংকটে কখনোই এমন দাবি করা যায় না যে কেউ কোনো অসুবিধা বা সমস্যায় পড়েনি। আমাদের দেশের শ্রমজীবী মানুষজন, পরিযায়ী শ্রমিক, ক্ষুদ্র শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা এবং কারিগর, হকারসহ দেশের সব ধরনের মানুষই প্রচণ্ড দুর্ভোগ সহ্য করছে।’

তিনি আরো লেখেন, ‘তবে আমাদের এদিকে সব সময় খেয়াল রাখতে হবে যে আমাদের এসব সমস্যা যেন কোনোভাবেই বিপর্যয়ের আকার না নেয়।’ এ কথাও চিঠিতে উল্লেখ করেন নরেন্দ্র মোদি। কাজ হারিয়ে যেসব মানুষ হাজার হাজার কিলোমিটার হেঁটে বা সাইকেল চালিয়ে বা ট্রাকে করে ঘরে ফেরার চেষ্টা করেছে, সেই কথাও স্মরণ করেছেন মোদি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে জারি করা লকডাউন দেশে যে আরো বড় সমস্যা সৃষ্টি করেছে, সব দেখেশুনে এমন কথা কিন্তু বলছেন অনেকেই। ঠিক সেই সমালোচনার সময়েই চিঠি লিখে নিজের মনের কথা দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে ভাগ করে নিলেন মোদি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেশ একসঙ্গে অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ ও সমস্যার মুখোমুখি হয়েছে। আমি দিনরাত কাজ করে যাচ্ছি। আমার কাজে হয়তো কিছু ঘাটতি থাকতে পারে তবে আমাদের দেশের মধ্যে কোনো উদ্যমের অভাব নেই।  সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য