kalerkantho

রবিবার । ২১ আষাঢ় ১৪২৭। ৫ জুলাই ২০২০। ১৩ জিলকদ  ১৪৪১

আফগানিস্তানে সন্ত্রাসী হামলা

তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর নির্দেশ আশরাফ ঘানির

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তালেবানের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর নির্দেশ আশরাফ ঘানির

পৃথক দুটি হামলায় নারী ও নবজাতকসহ কয়েক ডজন মানুষ নিহত হওয়ার পর সেনাবাহিনীকে তালেবান এবং অন্য জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি। গত মঙ্গলবার টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে তিনি এ নির্দেশ দেন। এদিকে যেকোনো হামলা প্রতিহতের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে বলে গতকাল বুধবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে তালেবান।

মঙ্গলবার সকালে ভারী অস্ত্র নিয়ে তিন জঙ্গি কাবুলের পশ্চিমে অবস্থিত ডক্টরস উইদাউট বর্ডারসের একটি হাসপাতালে হামলা চালায়। এ সময় তারা হাসপাতালটির ভেতরে ১৬ জনকে গুলি করে হত্যা করে। নিহতদের মধ্যে দুটি নবজাতক ও নার্স রয়েছেন। অন্যদিকে কাবুলে হামলার এক ঘণ্টার মধ্যেই নানগারহর প্রদেশে আত্মঘাতী হামলা চালায় এক জঙ্গি। স্থানীয় পুলিশের এক কমান্ডারের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠান চলাকালে চালানো ওই হামলায় দুই ডজন জন মানুষ নিহত হয়। দ্বিতীয় হামলার ঘটনার পরে দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয় ইসলামিক স্টেট (আইএস)।

টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে আশরাফ ঘানি বলেন, ‘আমি আফগান নিরাপত্তা বাহিনীকে আত্মরক্ষামূলক ভূমিকা থেকে সরে আক্রমণাত্মক হওয়ার নির্দেশ দিয়েছি। একই সঙ্গে আমি শত্রুদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করতে তাদের নির্দেশ দিয়েছি।’ আইএসের আরবি নাম উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘আজ আমরা কাবুলের একটি হাসপাতালে ও নানগারহার প্রদেশে পুলিশের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে জঙ্গিগোষ্ঠী তালেবান ও দায়েশকে হামলা চালাতে দেখেছি। একই সঙ্গে তারা দেশের অন্য এলাকাগুলোতেও হামলা চালিয়েছে।’

এদিকে কাবুলে হামলার সঙ্গে নিজেদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে জানিয়েছে তালেবান। আফগানিস্তান শান্তি প্রতিষ্ঠায় এবং মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের শর্তে গত ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ঐতিহাসিক চুক্তি করে তালেবান জঙ্গিগোষ্ঠী। কাতারের রাজধানী দোহায় দুই পক্ষের মধ্যে সই হওয়া চুক্তির পর থেকেই আফগান বাহিনী তালেবানের হামলা ঠেকাতে আত্মরক্ষামূলক ব্যবস্থা নেওয়ারই ঘোষণা দেয়।

আশরাফ ঘানি বলেন, ‘দেশ, আমাদের জনগণ এবং অবকাঠামো রক্ষার পাশাপাশি তালেবান ও অন্য জঙ্গিদের কাছ থেকে আসা হুমকি ও হামলা রোধ করতে আক্রমণাত্মক অভিযানের প্রয়োজন আছে।’

এদিকে এক বিবৃতিতে সরকারি বাহিনীর হামলা প্রতিরোধে ‘সব ধরনের ব্যবস্থা’ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তালেবান। জঙ্গিগোষ্ঠী জানায়, ‘এখন থেকে সহিংসতার মাত্রা বৃদ্ধি পেলে এবং পরিণতির দায়ভার গিয়ে পড়বে আফগান সরকারের ওপর।’ সূত্র : আলজাজিরা।

মন্তব্য