kalerkantho

শুক্রবার । ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৫ জুন ২০২০। ১২ শাওয়াল ১৪৪১

দেশবাসীকে ধন্যবাদ মোদির

মোমবাতি-প্রদীপ জ্বালানোর ডাক

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মোমবাতি-প্রদীপ জ্বালানোর ডাক

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের সময় ঘরে থেকে নিঃশব্দ এক লড়াই চালিয়ে যাওয়ার জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানালেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গতকাল শুক্রবার এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশের সব মানুষের প্রতি নতুন এক বার্তা দিলেন তিনি। কাল রবিবার রাত ৯টায় ঘরের সব আলো বন্ধ করে ঘরের দরজা বা বারান্দায় দাঁড়িয়ে ৯ মিনিটের জন্য মোমবাতি, প্রদীপ, টর্চ বা মোবাইলের ফ্ল্যাশ লাইট জ্বালানোর অনুরোধ করলেন। গত ২৪ মার্চ দেশজুড়ে ২১ দিনের লকডাউন ঘোষণা করেন মোদি। এর ঠিক ৯ দিন পরে এটাই দেশবাসীর প্রতি তাঁর প্রথম বার্তা।

এর আগে ভারতে করোনা মহামারি ক্রমেই মারাত্মক উদ্বেগের কারণ হয়ে ওঠার পর দু-দুবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি। তাঁর প্রথম ভাষণে, তিনি এক দিনের জন্য জনতার কারফিউ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং ২৪ মার্চ দ্বিতীয় ভাষণে তিনি কভিড-১৯-এর বিস্তার রোধে গোটা দেশে লকডাউন চালু করার ঘোষণা করেন।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী মোদি সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গেও এক বৈঠক করেন এবং লকডাউন পর্ব শেষ হওয়ার পরে জনগণের জীবনযাত্রা যাতে সুরক্ষিত থাকে এর জন্য একটি বিশেষ পরিকল্পনা নেওয়ার কথা বলেন তিনি। ‘লকডাউন শেষ হওয়ার পরে জনগণকে অচলাবস্থা থেকে আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে একটি সামগ্রিক পরিকল্পনা নেওয়া জরুরি’, বলেন প্রধানমন্ত্রী। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে সব রাজ্যকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

ভারতে ২১ দিনের লকডাউন চলার সময়েও ক্রমে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বর্তমানে ভারতে মোট এক হাজার ৯৬৫ জন মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছে, যার মধ্যে আবার ৫০ জনের মৃত্যুও হয়েছে।

মোদি দেশবাসীর উদ্দেশে বলেন, ‘সংকটের এই সময়ে আপনারা সকলে যেভাবে একত্র হয়েছেন, তা প্রশংসনীয়। ভারতীয়রা কিভাবে বাড়ির ভেতরে থাকতে পারে, তা গোটা বিশ্বকে দেখিয়ে দিয়েছে তাঁরা। অন্য দেশগুলো ভারতের এই লকডাউনের উদাহরণ অনুসরণ করছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমি আপনাদের সবাইকে বলতে চাই যে আপনারা কেউ একা নন। আমরা সবাই একসঙ্গে আছি।

লকডাউনের সময় দরিদ্ররাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।’

এদিকে মোদির ভিডিও বার্তাকে কটাক্ষ করে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন বিরোধীরা। কংগ্রেস থেকে তৃণমূল সবাই বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বাস্তবে ফিরে আসুন।’ কংগ্রেস নেতা শশী থারুর এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘প্রধান শোম্যানের কথা শুনলাম। তবে মানুষের যন্ত্রণা, তাঁদের বোঝা ও আর্থিক সংকট মেটানোর কোনো সমাধান নেই। ভবিষ্যতের কোনো দিশা নেই। লকডাউনের পর কী হবে তার কোনো পরিকল্পনা নেই।’ ভারতের প্রধানমন্ত্রী শুধু একটা ফিলগুড মুহূর্ত উপহার দিয়েছেন। কংগ্রেস নেতা পি চিদম্বরম টুইট করেন, ‘আমরা আপনার কথা শুনব আর ৫টায় মোমবাতি জ্বালাব। তবে তার বদলে দয়া করে আমাদের কথা এবং জ্ঞানী অর্থনীতিবিদদের কথা শুনুন।’ তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মিত্র বলেন, ‘আলো নেভান ও ব্যালকনিতে আসুন। বাস্তবে ফিরুন মিস্টার মোদি। ভারতকে আর্থিক প্যাকেজ দিন। লকডাউনের সময় অবিলম্বে নির্মাণকর্মী ও দিনমজুরদের পারিশ্রমিক নিশ্চিত করুন।’ সূত্র : এনডিটিভি, এই সময়।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা