kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৯  মে ২০২০। ৫ শাওয়াল ১৪৪১

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই

যুদ্ধবিরতিতে সশস্ত্র দলগুলো জাতিসংঘের প্রশংসা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৮ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অস্ত্রবিরতির আহ্বানে সাড়া দেওয়ায় বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সশস্ত্র দলগুলোর প্রশংসা করেছে। বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের তীব্রতা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যুদ্ধে জড়িত সশস্ত্র দলগুলোর প্রতি জাতিসংঘ অস্ত্রবিরতির আহ্বান জানিয়েছিল। যুদ্ধবিরতি কার্যকরে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ও সাধারণ পরিষদের সদস্যরা খসড়া প্রস্তাব তৈরি করছেন।

গত সোমবার জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ক্যামেরুন, ফিলিপাইন, ইয়েমেন এবং সিরিয়ায় লড়াইয়ে লিপ্ত সশস্ত্র দলগুলোর প্রতি যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানিয়েছিলেন। গুতেরেস মূলত যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন ও সিরিয়ার নাগরিকদের রক্ষায় এই আহ্বান জানান। যুদ্ধের কারণে এসব অঞ্চলে ঠিকমতো করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যসেবা পরিচালনা কঠিন হয়ে পড়েছিল।

ইয়েমেনে জাতিসংঘের বিশেষ দূত মার্টিন গ্রিফিথ জানিয়েছেন, জাতিসংঘের আহ্বানে সরকার এবং হুথি বিদ্রোহীরা ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আমি আশা করি, উভয় পক্ষ তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবে। উভয় পক্ষ ইয়েমেনের নাগরিকদের স্বার্থ সব কিছুর ঊর্ধ্বে রাখবে।’ এ ছাড়া কিভাবে প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা যায় সে জন্য মার্টিন গ্রিফিথ জরুরি বৈঠক ডেকেছেন।

ইয়েমেনে পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে গৃহযুদ্ধ চলছে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এই যুদ্ধ বিশ্বে সবচেয়ে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় তৈরি করেছে।

ক্যামেরুনে দুইটি বিচ্ছিন্নতাবাদী দল গত তিন বছর ধরে লড়াই করছে। এ লড়াইয়ে তিন হাজারের বেশি মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। তাদের মধ্যে বেশির ভাগই বেসামরিক নাগরিক। জাতিসংঘের আহ্বানে সাড়া দিয়ে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছে সাউদার্ন ক্যামেরুন্স ডিফেন্স ফোর্স। এ সম্পর্কে আন্তোনিও গুতেরেসের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক বলেন, ‘সাউদার্ন ক্যামেরুন্স ডিফেন্স ফোর্সের সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণাকে আমরা স্বাগত জানাই। জাতিসংঘের মহাসচিব অন্য সশস্ত্র দলগুলোকেও যুদ্ধবিরতি মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।’

গত বুধবার সাউদার্ন ক্যামেরুন্স ডিফেন্স ফোর্স যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করলেও বেশ কয়েকটি দল এবং তাদের প্রতিনিধিরা সংঘাত অব্যাহত রেখেছে। ডুজারিক বলেন, ‘জাতিসংঘের মহাসচিব ক্যামরুনে নতুন আলোচনার আহ্বান জানিয়েছেন। তাঁর বিশ্বাস, এতে সংঘাতের যেমন ইতি হবে, তেমনি মানুষের দুর্গতিরও অবসান হবে। আশা করছি, এসব ঘটনা বিশ্বব্যাপী বন্দুকের নিস্তব্ধতার উদাহরণ হবে এবং করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই আমাদের একত্র করবে।’

সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা