kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ২৬ চৈত্র ১৪২৬। ৯ এপ্রিল ২০২০। ১৪ শাবান ১৪৪১

এনপিআর এনআরসিবিরোধী প্রস্তাব পাস বিহারেও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু, পাঞ্জাবের তালিকায় নাম লেখাল বিহারও। তবে আরো এক কদম এগিয়ে জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জির (এনপিআর) সঙ্গে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) বিরোধী প্রস্তাবও বিধানসভায় পাস করল নীতীশ কুমার সরকার। প্রস্তাবের মূল বিষয়, রাজ্যে এনআরসি কার্যকর করা হবে না এবং বিহার সরকারের শর্ত মানলে তবেই এনপিআর কার্যকর করা হবে। এনপিআরের ফর্ম থেকে আপত্তিকর অংশগুলো বাদ দেওয়ার জন্য কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছেন বলে বিধানসভায় জানিয়েছেন নীতীশ।

গতকাল মঙ্গলবার অধিবেশনের শুরু থেকেই উত্তপ্ত হয়ে উঠে বিহার বিধানসভা। সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ), এনআরসি, এনপিআরের ওপর মুলতবি প্রস্তাব আনেন আরজেডি নেতা তথা বিরোধী দলনেতা লালুপুত্র তেজস্বী যাদব। স্পিকার বিজয় কুমার চৌধুরী সেই প্রস্তাব গ্রহণ করেন। অন্যদিকে অধিবেশনের শুরু থেকেই ‘কালাকানুন’ স্লোগান দিতে শুরু করেন আরজেডিসহ বিরোধী দলের বিধায়করা।

তাতে উত্তেজিত হয়ে উঠেন বিজেপির মন্ত্রী নন্দকিশোর যাদব, বিজয় কুমার সিনহাসহ বিধায়করা। তাঁরাও বিরোধীদের ওই স্লোগানের তীব্র প্রতিবাদ করে ইৈ-হট্টগোল শুরু করেন। প্রশ্ন তোলেন, ‘সংসদ কি তা হলে কালাকানুন পাস করেছে?’ আবার বিরোধীরাও মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারকে জবাব দেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। দুই পক্ষের এই হৈচৈয়ের মধ্যই অধিবেশন মুলতবি হয়। তারপর ফের অধিবেশন শুরু হলে হই হট্টগোলের মধ্যেই জবাব দেন নীতিশ।

নীতীশ কুমার আগেই জানিয়েছিলেন, তাঁর রাজ্যে এনআরসি কার্যকর করতে দেবেন না। পাশাপাশি এনপিআরের আপত্তিকর অংশগুলো বাদ দেওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। গতকাল সেই দুই প্রস্তাবই পাস হয়েছে বিধানসভায়। এনপিআরের ক্ষেত্রে ২০১০ সালের যে ফর্ম ছিল, সেই ফর্মেই সামান্য সংশোধন করে কার্যকর করার দাবি জানিয়েছেন নীতীশ। গতকল বিধানসভায় তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যের এই অবস্থান জানিয়ে কেন্দ্রকে চিঠিও লিখেছেন।

পাঞ্জাব, তামিলনাড়ু ও পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় এনপিআরবিরোধী প্রস্তাব আগেই পাস করেছে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলো। তবে এই তিন রাজ্যেই এনপিআর কার্যকর করা হবে না বলে প্রস্তাব পাস হয়েছে। নীতীশ তার সঙ্গে এনআরসিও যোগ করে দিলেন।

সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা