kalerkantho

শনিবার । ২১ চৈত্র ১৪২৬। ৪ এপ্রিল ২০২০। ৯ শাবান ১৪৪১

সিএএবিরোধী আন্দোলন

গণমাধ্যমের সামনেই আলোচনা চান শাহিনবাগের আন্দোলনকারীরা

শাহিনবাগে প্রায় দুই মাসের অবস্থান কর্মসূচির কারণে ওই এলাকায় অচলাবস্থা ও জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গণমাধ্যমের সামনেই আলোচনা চান শাহিনবাগের আন্দোলনকারীরা

ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) প্রতিবাদে গতকাল তামিলনাড়ুর চেন্নাইয়ে মুসলিম সংগঠন ও বিরোধী দলগুলো বিক্ষোভ করে। ছবি : এএফপি

ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) প্রতিবাদে দিল্লির শাহিনবাগে দুই মাস ধরে অবস্থান কর্মসূচি পালন করতে থাকা নারীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব নিয়ে গতকাল বুধবার ঘটনাস্থলে যান সুপ্রিম কোর্ট নিয়োজিত দুজন মধ্যস্থতাকারী। তবে সংবাদমাধ্যমের সামনে আলোচনা হবে কি না, এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের নির্বাচিত মধ্যস্থতাকারী সঞ্জয় হেগড়ে ও সাধনা রমাচন্দ্র গতকাল শাহিনবাগে আন্দোলনরত নারীদের সঙ্গে দেখা করে জানান, সংবাদমাধ্যমের অনুপস্থিতিতে তাঁরা আলোচনায় বসতে চান। আন্দোলনকারীরা অবশ্য সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে আলোচনার ওপর জোর দিয়েছেন। কিন্তু সাধনা অটল অবস্থান বজায় রেখে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশে বলেন, ‘সংবাদমাধ্যমের সামনে কথা বলতে চাইলে আপনারা বলতে পারেন, কিন্তু আমরা কোনো কথা বলব না।’

গতকাল শাহিনবাগে গিয়ে সাধনা আন্দোলনকারীদের আরো বলেন, ‘আপনাদের আন্দোলন করার অধিকারের প্রতি সুপ্রিম কোর্টের সমর্থন আছে। আমরা সবার কথা শুনব। আমরা এমন একটা সমাধানে পৌঁছাব, যা বিশ্বে উদাহরণ হয়ে থাকবে।’

সঞ্জয় ও সাধনাকে গত সোমবার মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব দেন সুপ্রিম কোর্ট। আন্দোলনকারীরা যেন সড়ক ছেড়ে অন্য কোথাও কর্মসূচি পালন করেন, সে ব্যাপারে তাঁদের রাজি করানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ওই দুজনের ওপর।

বিতর্কিত সিএএর প্রতিবাদে শাহিনবাগে নারীদের প্রায় দুই মাসের অবস্থান কর্মসূচির কারণে ওই এলাকায় অচলাবস্থা ও জনদুর্ভোগ চরমে উঠেছে। তাই আলোচনার মাধ্যমে তাঁদের সেখান থেকে সরিয়ে জনদুর্ভোগ নিরসনে দুজন অ্যাডভোকেটকে মধ্যস্থতাকারীর দায়িত্ব দিয়েছেন ভারতের সর্বোচ্চ আদালত।

এদিকে গতকাল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে দেখা করেন টানা তৃতীয়বারের মতো দিল্লির মুখ্যমন্ত্রিত্ব পাওয়া আম আদমি পার্টির (্এএপি) নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়াল। তবে তাঁদের মধ্যে শাহিনবাগ ইস্যুতে কোনো কথা হয়নি বলে নিশ্চিত করেছেন এএপির প্রধান। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা