kalerkantho

বুধবার । ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ইউক্রেনের বিমানে আঘাত হানে দুটি ক্ষেপণাস্ত্র

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২২ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইরানের ছোড়া দুটি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে ভূপাতিত হয়েছিল ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমান। গত সোমবার রাতে ইরানের বেসামরিক বিমান পরিবহন সংস্থা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। সঙ্গে অভিযোগ করেছে, বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক বক্স থেকে তথ্য উদ্ধারের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা ফ্রান্স এখনো প্রযুক্তিগত সহযোগিতা করেনি।

গত ৮ জানুয়ারি তেহরানের ইমাম খোমেনি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে উড্ডয়নের পরই ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের যাত্রীবাহী একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়। তাতে বিমানের ১৭৬ আরোহীর সবাই নিহত হয়। এদের মধ্যে ৫৭ জন কানাডার নাগরিক। ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমান ভূপাতিত হওয়ার অভিযোগ প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে স্বীকার করে তেহরান। জানায়, ভুল করে বিমানটিতে আঘাত করা হয়েছে।

এ অবস্থায় গত সোমবার রাতে দেশটির বেসামরিক বিমান পরিবহন সংস্থা প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে জানায়, ‘তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন যে টর-এম১ মডেলের দুটি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমানটি ভূপাতিত হয়েছে।’

‘টর-এম১’ মডেলটি সোভিয়েত আমলের। এটি ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপ করা হয়। সাধারণত যুদ্ধবিমান কিংবা ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ভূপাতিত করতে ব্যবহার করা হয় এটি।

দুর্ঘটনার পরই বিমানের ব্ল্যাক বক্স যুক্তরাষ্ট্র কিংবা ফ্রান্সের কাছে হস্তান্তর করতে ইরানকে অনুরোধ জানিয়ে আসছে কানাডা। কিন্তু ইরান এখনো তাতে রাজি হয়নি। দেশটির বেসামরিক বিমান পরিবহন সংস্থার তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ফ্লাইট ডাটা কিংবা ককপিটের ভয়েস রেকর্ডারের তথ্য উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। কারণ এগুলো খুবই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির। প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি কিংবা যন্ত্রপাতি পাওয়া গেলে খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ব্ল্যাক বক্স থেকে তথ্য উদ্ধার করা সম্ভব হবে।’ সূত্র : এএফপি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা