kalerkantho

শনিবার । ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়া

‘নিরপেক্ষ বিচার’ করার শপথ সিনেটরদের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটে শুরু হতে চলেছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়া। আগামী মঙ্গলবার থেকে এসংক্রান্ত শুনানি শুরু হওয়ার কথা। এর আগের ধাপ হিসেবে অভিশংসন প্রশ্নে নিরপেক্ষভাবে বিচার করার আনুষ্ঠানিক শপথ নিয়েছেন সিনেটররা। গত বৃহস্পতিবার তাঁরা শপথ নেন। একই দিন সরকারের জবাবদিহিবিষয়ক কার্যালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, আইন ভেঙেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প।

সিনেটে গত বৃহস্পতিবার প্রথমে শপথ নেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস। সিনেটে অভিশংসন কার্যক্রমের সভাপতির দায়িত্ব পালনের শপথ নেন তিনি। এরপর তিনি সিনেটরদের ‘নিরপেক্ষ বিচার’ নিশ্চিত করানোর জন্য শপথ পড়ান। সিনেটররাও সমস্বরে এতে সায় দেন।

পরের ধাপের আনুষ্ঠানিকতা হিসেবে সিনেট সার্জেন্ট অব আর্মস মাইকেল স্টেঙ্গার সবাইকে নীরবতা পালনের আহবান  জানান। এরপর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ পড়ে শোনান কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডাম শিফ। সিনেটে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন লড়াইয়ে তিনিই নেতৃত্ব দেবেন। তিনি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কাজে বাধাদানের অভিযোগ দুটি উপস্থাপন করেন। এসব আনুষ্ঠানিকতা শেষে স্থানীয় সময় আগামী মঙ্গলবার দুপুর ১টা পর্যন্ত সিনেটের অধিবেশন মুলতবি করা হয়। নির্ধারিত সময়ের পরই শুরু হবে অভিশংসন প্রশ্নে বিচার কার্যক্রম।

কংগ্রেসের অভিশংসন তদন্তের শুরু থেকেই এর বিরুদ্ধে কটুকাটব্য করে আসছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। গত বৃহস্পতিবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। তিনি এদিন নিজ কার্যালয়ে বসে অভিশংসন তদন্তকে ‘ধাপ্পাবাজি’ অ্যাখ্যা দেন। এ ব্যাপারে ওভাল অফিসে তিনি সাংবাদিকদের আরো বলেন, ‘আমি মনে করি, কাজটা দ্রুত এগোনো উচিত।’ অভিশংসন তদন্তটা ‘পুরোপুরি পক্ষপাতদুষ্ট’ এবং ডেমোক্র্যাটরা এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জেতার কৌশল হিসেবে কাজটা করছেন, এমন মন্তব্যও করেন তিনি।

আইন ভেঙেছেন ট্রাম্প : অভিশংসন ইস্যুতে সিনেটের আনুষ্ঠানিকতার দিনই সরকারের জবাবদিহিবিষয়ক কার্যালয় (জিএও) একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে বলা হয়, ইউক্রেনকে সামরিক সহায়তা দেওয়ার ব্যাপারে কংগ্রেসের অনুমোদন সত্ত্বেও তাতে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং এমন আদেশ প্রদানের মাধ্যমে তিনি কেন্দ্রীয় আইন ভেঙেছেন।

কংগ্রেসের এ পর্যবেক্ষক সংস্থার গত বৃহস্পতিবারের প্রতিবেদনকে স্বাগত জানিয়েছে ডেমোক্র্যাট শিবির। অন্যদিকে রিপাবলিকানদের অভিযোগ, সংবাদমাধ্যমের নজর কাড়ার জন্য প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে জিএও।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার শীর্ষ ডেমোক্র্যাট নেতা ন্যান্সি পেলোসি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হোয়াইট হাউস আইন ভঙ্গ করেছে।

অভিশংসন প্রক্রিয়ার প্রেক্ষাপট : প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গত বছর ২৫ জুলাই ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকে ফোন করেন। সেদিন তিনি ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর জন্য জেলেনস্কির ওপর চাপ সৃষ্টি করেন। বাইডেন আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের অন্যতম সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা