kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

ট্রাম্পের অভিশংসনের নথি সিনেটে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসনের নথি গত বুধবার সিনেটে পাঠানো হয়েছে। এর আগে ২২৮-১৯১ ভোটে মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে ট্রাম্পের অভিশংসনের প্রস্তাবটি পাস হয়।

সিনেটের রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল প্রতিনিধি পরিষদের পাঠানো নথি হাতে পাওয়ার কথা জানিয়েছেন। তিনি ঘোষণা দিয়েছেন, ‘বৃহস্পতিবার (গতকাল) বিকেলে এসব অনুচ্ছেদ চেম্বারে আনুষ্ঠানিকভাবে পড়ে শোনানো হবে। পরে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস এই বিচারের সভাপতিত্ব করার শপথ নেবেন। এরপর তিনি জুরির দায়িত্ব পালন করা ১০০ সিনেট সদস্যের শপথ পড়াবেন। এরই মধ্যে অভিশংসনের বিচারের প্রস্তুতি চলবে। আগামী মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিচার কার্যক্রম শুরু করা হবে।’

হাউসের গোয়েন্দা বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান অ্যাডাম স্কিফের নেতৃত্বে হাউসের সাত ব্যবস্থাপকের একটি দল সিনেটে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলায় বাদীর ভূমিকা পালন করবেন।

মামলার অভিযোগে স্বাক্ষর করার আগে সংবাদ সম্মেলনে পেলোসি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসনের অভিযোগ সিনেটে পাঠানোকে ঐতিহাসিক ঘটনা হিসেবে অ্যাখ্যা দেন। তিনি বলেন, ‘আজ আমরা ইতিহাস সৃষ্টি করতে যাচ্ছি। যখন ব্যবস্থাপকরা এই হল দিয়ে হেঁটে যাবেন, আমরা ইতিহাসের একটি সীমা অতিক্রম করব—ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কাজে বাধা দেওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিশংসনের অভিযোগ হস্তান্তর করব।’

গত ২৫ জুলাই ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে ট্রাম্পের ফোনে কথা হয়। এতে যুক্তরাষ্ট্রের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনকে কোণঠাসা করতে তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর জন্য ট্রাম্প চাপ সৃষ্টি করেন বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ইস্যুতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরু হয়। অবশ্য ট্রাম্প তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন।

এর আগে দুজন মার্কিন প্রেসিডেন্ট অভিশংসিত হয়েছেন। তাঁরা হচ্ছেন অ্যান্ড্রু জনসন ও বিল ক্লিনটন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে তৃতীয় প্রেসিডেন্ট হিসেবে ইতিমধ্যে অভিশংসিত হয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত মাসে ডেমোক্র্যাট সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিনিধি পরিষদ ট্রাম্পকে অভিশংসিত করে। এখন রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেটে শুরু হতে যাওয়া বিচারে প্রেসিডেন্টকে দোষী সাব্যস্ত এবং দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে কি না—সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। সিনেটে রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটদের ব্যবধান ৫৩-৪৭ হওয়ায় বিচারে ট্রাম্প পার পেয়ে যাবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এ বিচার চলতি বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকানদের ওপর প্রভাব ফেলবে বলে আশা ডেমোক্র্যাটদের। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা