kalerkantho

সোমবার । ২০ জানুয়ারি ২০২০। ৬ মাঘ ১৪২৬। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

সোনিয়ার সিএএবিরোধী বৈঠকে নেই মমতা-মায়াবতী

অধরাই রয়ে গেল বিরোধী ঐক্য

সিএএ নিয়ে নতুন করে চিন্তাভাবনার প্রয়োজন রয়েছে : নীতীশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে রণকৌশল ঠিক করতে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর ডাকে গতকাল সোমবার বিরোধীদের বৈঠক বসল। তবে এতে অধরা থেকে গেল বিরোধী ঐক্য। তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সমাজবাদী দলের নেত্রী মায়াবতী, আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল বৈঠকে যোগ দেননি। আসেননি শিবসেনার কোনো প্রতিনিধিও। দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে কিভাবে জোটবদ্ধ হয়ে লড়া যায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে, তা ঠিক করতে ১৪টি বিরোধী দলের উপস্থিতিতেই আলোচনা চলে।

এদিকে কেন্দ্রে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট (এনডিএ) সরকারের অন্যতম শরিক সংযুক্ত জনতা দলের প্রধান ও বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিষয়ে মত পাল্টে বললেন, সিএএ নিয়ে নতুন করে চিন্তা-ভাবনার প্রয়োজন রয়েছে। এর আগে লোকসভায় সিএএর পক্ষে ভোট দিয়েছিল নীতীশের দল।

সংবাদমাধ্যম জানায়, জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) ও সিএএর মতো বিষয়গুলোর বিরোধিতায় যাতে সুর না কাটে, সে জন্য সব বিরোধী দলের উপস্থিতি চেয়েছিল বৈঠকের আয়োজক দল কংগ্রেস। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, সিএএ-এনআরসি বিরোধিতার প্রশ্নে এক হতে পারল না বিরোধীরা। বিজেপির বিরুদ্ধে বাম-কংগ্রেসসহ বিরোধী দলগুলোর শ্রমিক-ছাত্র-যুব সংগঠনের ডাকা সর্বভারতীয় ধর্মঘটের পরেই মমতা জানিয়ে দিয়েছিলেন যে বিরোধী বৈঠকে তিনি যোগ দেবেন না। ক্রমে স্পষ্ট হয় এই দলে ভিড়তে চাইছেন না কেজরিওয়াল, মায়াবতীও। বৈঠকে গড়হাজির ছিল শিবসেনাও। এদিন বিএসপি নেত্রী টুইটারে লেখেন, ‘আমরা সিএএ এবং এনআরসির বিরোধী। আমরা কেন্দ্রকে বারবার অনুরোধ করব এই আইন প্রত্যাহার করতে। কিন্তু এই মিটিংয়ে যাচ্ছি না।’ কারণ হিসেবে মায়াবতীর দাবি, বিএসপিতে বারবার ভাঙন ধরাচ্ছে কংগ্রেস।

সোনিয়ার উদ্যোগে সোমবারের বিরোধী শিবিরের বৈঠকের আগে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক হয় দিল্লিতে এআইসিসি দপ্তরে। বৈঠক থেকে সংসদে পাস হওয়া নয়া নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) প্রত্যাহার ও জাতীয় জনসংখ্যা পঞ্জির (এনপিআর) প্রক্রিয়া রদ করার দাবি তোলেন সোনিয়া।

নীতীশের সুর বদল : শুরু থেকেই এনআরসির বিরোধিতা করে আসছেন নীতীশ কুমার। তবে লোকসভায় তাঁর দল সিএএর সমর্থনে ভোট দিলেও তা নিয়ে একটি শব্দও খরচ করতে দেখা যায়নি তাঁকে।

গতকাল রাজ্য বিধানসভায় অধিবেশন চলাকালীন এনআরসি এবং সিএএ নিয়ে নীতীশ সরকারের বিরুদ্ধে আক্রমণে শান দেন লালুপ্রসাদ যাদবের রাষ্ট্রীয় জনতা দলের (আরজেডি) বিধায়করা। সেই সময় নীতীশ জানিয়ে দেন, বিহারে এনআরসি করার প্রশ্নই ওঠে না। এর পরেই তিনি বলেন, ‘সিএএ নিয়ে আরো আলোচনা হওয়া প্রয়োজন। প্রত্যেকে রাজি থাকলে বিধানসভায়ও বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হবে।’ সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা