kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ জানুয়ারি ২০২০। ৭ মাঘ ১৪২৬। ২৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

দোদুল্যমান ভোটারেই দৃষ্টি জনসন ও করবিনের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১২ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দোদুল্যমান ভোটারেই দৃষ্টি জনসন ও করবিনের

ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচন আজ বৃহস্পতিবার। জনমত জরিপ অনুযায়ী এগিয়ে আছে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের দল কনজারভেটিভ পার্টি। ব্রেক্সিটবিরোধী জেরেমি করবিনের দল লেবার পার্টি অনেক পিছিয়ে থাকলেও জরিপে তাদের ক্রমে উন্নতি বলছে টোরিদের এগিয়ে থাকার জরিপ ভুল প্রমাণিত হতে পারে। কারণ দোদুল্যমান ভোটাররা উল্টে দিতে পারে সব জরিপ। তাই নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে এসে দোদুল্যমান ভোটারদের কাছে নিজের মূল বার্তা পৌঁছে দিতে জনসন ও করবিনকে বেশ মরিয়া দেখা গেছে। ফলে নির্বাচনের ফল যা-ই হোক, ঝুলন্ত পার্লামেন্টের সম্ভাবনাও দেখছেন অনেকে।

ব্রেক্সিট বাস্তবায়নকে কেন্দ্র করে এ আগাম পার্লামেন্ট নির্বাচন হতে যাচ্ছে ব্রিটেনে। ফলে লেবার ও করজারভেটিভ পার্টি উভয়ই এটিকে ‘প্রজন্মের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন’ বলে অভিহিত করেছে। আবার দুই পক্ষই সম্পূর্ণ ব্রেক্সিট পরিকল্পনা তুলে ধরেছে।

গতকাল বুধবার নির্বাচনের আগের দিন প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ইয়র্কশায়ার থেকে মিডল্যান্ড এবং ওয়েলস থেকে লন্ডন পর্যন্ত তাঁর এ মূল বার্তা পৌঁছে দিতে মরিয়া ছিলেন যেন। সংখ্যাগরিষ্ঠ জয়ের জন্য আর মাত্র ১২ আসন দরকার কনজারভেটিভ পার্টির।

একই দিন করবিন তাঁর দিন শুরু করেন স্কটল্যান্ড থেকে। এ ছাড়া তিনি গতকাল ইংল্যান্ডে অন্তত পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী এলাকায় ঝটিকা সফর করেন, যেসব এলাকাকে সবচেয়ে বেশি দোদুল্যমান ভোটারের অবস্থান বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সর্বশেষ খবরে জানা গেছে, সব জরিপেই কনজারভেটিভ পার্টি ৬ থেকে ১৫ শতাংশ এগিয়ে আছে। এর অর্থ হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলটির সহজ সংখ্যাগরিষ্ঠতার পরিবর্তে একটি ঝুলন্ত পার্লামেন্টের মতো কিছু ঘটতে যাচ্ছে। গত মঙ্গলবার রাতে সর্বশেষ আসনভিত্তিক জরিপে দেখা গেছে, জনসনের দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে। তবে দুই সপ্তাহ আগে যেভাবে জনসনের দল এগিয়ে ছিল, সেখান থেকে অনেক নিচে নেমে গেছে জনমত।

গুরুত্বপূর্ণ জরিপ সংস্থা ইউগভ এমআরপির জনমত জরিপে দেখা গেছে, কনজারভেটিভ পার্টি ৪৩ শতাংশ সমর্থন নিয়ে অপরিবর্তিত অবস্থায় এগিয়ে আছে। তবে ২ শতাংশ সমর্থন বৃদ্ধি পেয়ে করবিনের লেবার পার্টির পক্ষে জনমত ছিল ৩৪ শতাংশ। এতে দেখা গেছে, টোরিদের আসন এবার ২৮টি কমে যেতে পারে। বিপরীতে সমপরিমাণ আসন লেবার পার্টির বেড়ে যেতে পারে। ছয় দিন ধরে এক লাখ মানুষের মধ্যে করা এ জরিপের ফল এটাই বলছে যে এবারের পার্লামেন্ট হবে ঝুলন্ত। সব জরিপের গড় ফল হচ্ছে, কনজারভেটিভ পার্টি ৯.৫ পয়েন্টে এগিয়ে আছে।

কয়েক দিনের খারাপ খবরের পর গত মঙ্গলবার জনসন স্ট্যাটফোর্ডশায়ারে ব্যাপক জনসংযোগ করেন। তাঁর উদ্দেশ্য শেষ মুহূর্তে দোদুল্যমান ভোটারের মন জয় করে আরো এগিয়ে থাকা।

আজ স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় ভোটগ্রহণ শুরু হবে। এটা মনে করিয়ে দিয়ে গতকাল মিডলসবার্গে এক সমাবেশে বলেন, একটি লেবার সরকারের জন্য জনগণের এটাই ভোট দেওয়ার সময়, যা আপনার পক্ষে যাবে। আর লেবার পার্টিই আমাদের এনএইচএসকে (ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস) রক্ষা করবে। এটাই শিশুযত্নের উপযুক্ত সময়। সূত্র : গার্ডিয়ান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা