kalerkantho

শনিবার । ২৫ জানুয়ারি ২০২০। ১১ মাঘ ১৪২৬। ২৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

পুড়ে যাওয়া আরেক ধর্ষিতার মৃত্যু

এবার উত্তপ্ত উত্তর প্রদেশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একের পর এক ধর্ষণের ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে রয়েছে ভারত। তেলেঙ্গানার ঘটনা নিয়ে চলমান সংকটের মধ্যেই উত্তর প্রদেশের উন্নাও শহর থেকে প্রায় একই ধরনের ঘটনার কথা জানা গেছে। ৯০ শতাংশ দগ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে গণধর্ষণের শিকার তরুণীর মৃত্যুর পর ক্ষোভে, প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছে উন্নাও। রাজ্যের মন্ত্রীরা ধর্ষিতার বাড়িতে যাওয়ার চেষ্টা করলে জনতার হামলার শিকার হন।

বিধানসভা ভবনের সামনে গতকাল শনিবার সকাল থেকেই ধর্নায় বসেন উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী সমাজবাদী পার্টির (সপা) নেতা অখিলেশ সিংহ যাদব। ধর্না শুরুর আগে ধর্ষিতার জন্য দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। উন্নাওয়ে সকালেই ধর্ষিতার বাড়িতে পৌঁছে গেছেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী।

এদিকে উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এদিন জানিয়েছেন, দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য উন্নাওয়ের গণধর্ষণ মামলাটিকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে এবার ফাস্ট-ট্র্যাক কোর্টে। আশ্বাস দিয়েছেন, অপরাধীরা চরমতম শাস্তি পাবে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। আমি মর্মাহত।’ বিচারমন্ত্রী ব্রজেশ পাঠক বলেছেন, ‘মামলাটিকে ফাস্ট-ট্র্যাক কোর্টে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য আমরা আজ আদালতে আরজি জানাব। আমরা আদালতে মামলার রোজ শুনানিরও আরজি জানাব। যাতে দ্রুত নিষ্পত্তি হয় মামলার। অপরাধীরা দ্রুত শাস্তি পায়।’

কিন্তু গণধর্ষিতার জন্য কেন পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হলো না, সেই প্রশ্নটা উঠতে শুরু করে দিয়েছে।

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার আদালতে যাওয়ার সময় ওই তরুণীকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করা হয়। এ ঘটনার সঙ্গে দুই ধর্ষণকারীও জড়িত ছিল। ৯০ শতাংশ পুড়ে যান ওই ধর্ষিতা, আশঙ্কাজনক অবস্থায় দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা