kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

অস্থির বাগদাদে অস্ত্রধারীদের রাতভর হামলায় নিহত ১৭

চার ইরাকির ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইরাকে সরকারবিরোধী অবস্থান ধর্মঘটকারীদের ওপর গত শুক্রবার দিবাগত রাতে সশস্ত্র ব্যক্তিদের হামলায় ১৭ জন নিহত হয়েছে। এ হামলার প্রতিবাদে গতকাল শনিবার ভোরে রাজধানী বাগদাদ ও দক্ষিণাঞ্চলে বিপুলসংখ্যক বিক্ষোভকারী রাস্তায় নেমে আসে। এদিকে ইরাকের প্যারামিলিটারি বাহিনীর তিন নেতার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

বাগদাদে সরকারবিরোধী আন্দোলনকারীরা কয়েক সপ্তাহ ধরে যে ভবনে অবস্থান করছে, গত শুক্রবার রাতভর সেখানে হামলা চালায় অজ্ঞাত পরিচয় অস্ত্রধারীরা। এতে ১৭ জন নিহতের তথ্য নিশ্চিত করেছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। হামলার সময় নিরাপত্তা বাহিনীর ভূমিকা সম্পর্কে প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, ঘটনার সময় কাছাকাছি অবস্থানে থাকা নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা নীরব ছিলেন।

এদিকে হামলার শিকার মানুষজন ওই ভবন থেকে বের হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচিতদের তাহরির স্কয়ারে আসার আহ্বান জানায়। তাতে সাড়া দিয়ে গতকাল ভোর না হতেই তাহরির স্কয়ারে এবং কাছাকাছি আল সিনেক সেতুতে শত শত বিক্ষোভকারী জড়ো হয়। তাদের সমর্থনে গতকাল ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলেও বিক্ষোভ হয়। রাজধানীর পাশাপাশি সেখানেও সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলছে।

ইরাকের অস্থিশীলতার মধ্যেই গত শুক্রবার দেশটির প্যারামিলিটির বাহিনীর তিন নেতার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। বিক্ষোভাকারীদের ওপর কঠোর দমন-পীড়নের অভিযোগে তাঁদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। নিষেধাজ্ঞার জেরে যুক্তরাষ্ট্রে থাকা তাঁদের সম্পদ জব্দ করা হবে এবং যুক্তরাষ্ট্রে তাঁদের প্রবেশে বাধা দেওয়া হবে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। ওই তিন নেতার পাশাপাশি ইরাকের এক রাজনীতিকের ওপরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। ঘুষ লেনদেনের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

ইরানের সমর্থনপুষ্ট প্যারামিলিটারি বাহিনীর তিন নেতার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পাশাপাশি ইরানের উদ্দেশে হুঁশিয়ারি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, তারা যেন ইরাকের অভ্যন্তরীণ বিষয় থেকে দূরে থাকে। চলমান বিক্ষোভের মধ্যে ইরানের সেনাবাহিনীর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি বাগদাদ ভ্রমণ করেছেন—এমনটা জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক শীর্ষ কূটনীতিক ডেভিড শেংকার সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটা অস্বাভাবিক আর মারাত্মক সন্দেহের বিষয় এবং এটা ইরাকের সার্বভৌমত্বের বড় ধরনের লঙ্ঘন। দেশটির সংবিধানে হস্তক্ষেপ না করতে এবং এর ধ্বংস ডেকে না আনতে প্রতিবেশীদের প্রতি আমরা আহ্বান জানাচ্ছি।’

সরকার পরিবর্তনের দাবিতে দুই মাস ধরে অস্থিতিশীল ইরাক। প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদেল মাহদি পদত্যাগ করার পরও আন্দোলন থামেনি। আন্দোলনকারীরা গোটা সরকারব্যবস্থায় পরিবর্তনের দাবিতে কর্মসূচি অব্যাহত রেখেছে। আন্দোলন চলাকালে এরই মধ্যে প্রায় ৪৫০ জন নিহত হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৭ জন নিহত হয় গত শুক্রবার রাতে। ইরাকের অস্থিতিশীলতার মধ্যে দেশটির চার নাগরিকের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করল যুক্তরাষ্ট্র। আরো ইরাকির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের আশঙ্কা নাকচ করে দেননি কূটনীতিক ডেভিড শেংকার। সূত্র : এএপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা