kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

ট্রাম্পকে অভিশংসনে প্রস্তাব তৈরির নির্দেশ হাউস স্পিকারের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ট্রাম্পকে অভিশংসনে প্রস্তাব তৈরির নির্দেশ হাউস স্পিকারের

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন করার জন্য কংগ্রেসে প্রস্তাব উত্থাপনের নির্দেশনা দিয়েছেন হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি। গত বৃহস্পতিবার তিনি অভিশংসনের আনুষ্ঠানিকতা শুরুর জন্য হাউস জুডিশিয়ারি কমিটিকে নির্দেশনা দেন। এতে ক্ষিপ্ত ট্রাম্প তাঁকে অভিশংসিত করার প্রক্রিয়া ‘দ্রুত’ সম্পন্ন করতে বলেছেন। শেষ পর্যন্ত তিনিই জিতবেন, এমন মন্তব্যও করেছেন এ রিপাবলিকান নেতা।

ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষে প্রতিবেদন প্রদানের কাজ সম্পন্ন করেছেন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের ডেমোক্র্যাটরা। তাঁকে অভিশংসনের ব্যাপারে বিশেষজ্ঞ মতামত নেওয়ার কাজটিও গত বুধবার শেষ করেছেন তাঁরা। এর ধারাবাহিকতায় শীর্ষ ডেমোক্র্যাট নেতা স্পিকার পেলোসি গত বৃহস্পতিবার হাউস জুডিশিয়ারি কমিটিকে অভিশংসন প্রস্তাব উত্থাপনের নির্দেশনা দেন।

এ ব্যাপারে এক টেলিভিশন বক্তব্যে পেলোসি বলেন, ‘দুঃখ হচ্ছে, কিন্তু আত্মবিশ্বাসের পাশাপাশি নম্রতার সঙ্গে, আমাদের প্রতিষ্ঠাতাদের প্রতি আনুগত্যের সঙ্গে এবং আমেরিকার প্রতি একবুক ভালোবাসা নিয়ে আজ (বৃহস্পতিবার) আমি আমাদের চেয়ারম্যানকে অভিশংসন প্রক্রিয়া শুরুর অনুরোধ জানিয়েছি।’ তাঁর মতে, ‘প্রেসিডেন্ট ক্ষমতার অপব্যবহারের সঙ্গে জড়িয়েছেন, আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষতি করেছেন এবং আমাদের নির্বাচনের অখণ্ডতাকে বিপন্ন করেছেন।’ এর মধ্য দিয়ে ‘প্রেসিডেন্ট তাঁর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ ছাড়া আর কোনো উপায় রাখেননি’, এমন মন্তব্যও করেন পেলোসি।

চুপচাপ সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শেষ করে পেলোসি যখন সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন, তখন এক সাংবাদিকের প্রশ্নে ভীষণ রেগে যান তিনি। তিনি ট্রাম্পকে ঘৃণা করেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে প্রশ্নকর্তা সাংবাদিকের দিকে সরাসরি তাকিয়ে বেশ কঠোরভাবে তিনি বলেন, ‘প্রসঙ্গটা যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান নিয়ে এবং বাস্তবতা হলো প্রেসিডেন্ট তাঁর শপথ ভঙ্গ করেছেন। আর আমার উদ্দেশে আপনি যে কথাটা বলেছেন, তাতে ঘৃণা শব্দটির ব্যবহার একজন ক্যাথলিক হিসেবে আমি ক্ষতিকর মনে করি। আমি কাউকে ঘৃণা করি না।’ তিনি আরো বলেন, ‘আমি সব সময় প্রেসিডেন্টের জন্য প্রার্থনা করি। সুতরাং এ ধরনের শব্দ ব্যবহার করে আমার সঙ্গে গণ্ডগোল পাকাবেন না।’

এদিকে অভিশংসন তদন্তের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই তীব্র বাক্য বর্ষণ করতে থাকা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বরাবরের মতো গত বৃহস্পতিবারও টুইটারের আশ্রয় নেন। এদিন তিনি টুইটে লেখেন, ‘আপনারা যদি আমাকে অভিশংসন করতেই চান, তবে এখনই করুন, দ্রুত।’ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে তাঁকে অভিশংসন করা হলেও রিপাবলিকান অধ্যুষিত সিনেটে তিনি ‘সুবিচার’ পাবেন বলে মন্তব্য করেন। অভিশংসনের বিরুদ্ধে রিপাবলিকানদের অবস্থান সম্পর্কে তিনি টুইট করেন, ‘ইতিবাচক বিষয় হলো রিপাবলিকানরা এতটা ঐক্যবদ্ধ কখনোই ছিল না। আমরা জিতবই!’।

ট্রাম্প আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরুর জন্য ইউক্রেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছেন এবং স্বার্থোদ্ধারের লক্ষ্যে তিনি ইউক্রেনকে দেওয়া সামরিক সহায়তা স্থগিত করেছেন—এমন অভিযোগে তাঁকে অভিশংসনের উদ্যোগ নিয়েছেন ডেমোক্র্যাটরা। ডেমোক্রেটদের দখলে থাকা হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে ওই উদ্যোগ সফলতার মুখ দেখতে পারে, এমন সম্ভাবনা থাকলেও সিনেটে সেটা সম্ভব হবে না বলে পর্যবেক্ষকদের ধারণা। খোদ প্রেসিডেন্টও এ ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। সূত্র : এএফপি, সিএনএন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা