kalerkantho

রবিবার । ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৭ রবিউস সানি                    

শারদ পাওয়ারের মন্তব্যে বাড়ছে ধন্দ

বিজেপি-শিবসেনা নিজেদের রাস্তা দেখে নিক

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কংগ্রেস নেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বৈঠকের আগে গতকাল সোমবার সকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সবাইকে চমকে দিলেন বর্ষীয়ান এনসিপি নেতা শারদ পাওয়ার। মহারাষ্ট্র রাজ্যে সরকার গঠনের বিষয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, ‘শিবসেনা জানিয়েছে, এনসিপির সঙ্গে সরকার গঠনের আলোচনা চলছে?’ এর উত্তরে শারদ পাওয়ার পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে বলেন, ‘আচ্ছা?’ আদর্শগতভাবে একেবারে বিপরীত মনোভাবের দল শিবসেনার সঙ্গে জোট গড়ার বিষয়ে সোনিয়া গান্ধী উদ্বিগ্ন। কিন্তু দলের মহারাষ্ট্র নেতৃত্ব জোট গড়ার ব্যাপারে জোর করে। তাদের যুক্তি, এভাবে সরকার গড়লে বিজেপিকে একটি গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য থেকে সরিয়ে রাখা যাবে। শিবসেনা ও কংগ্রেসের মধ্যে সেতু হয়ে দেখা দেন শারদ পাওয়ার। এরই মধ্যে শিবসেনার সঙ্গে জোট গড়া নিয়ে একাধিক আলোচনা তিনি করেছেন সোনিয়ার সঙ্গে।

কিন্তু এদিন দিল্লিতে সাংবাদিকদের শারদ পাওয়ার প্রশ্ন করেন, ‘শিবসেনা-এনসিপি-কংগ্রেস গঠিত সরকার হবে বলে আপনারা মনে করেন?’ ৭৯ বছরের এই রাজনীতিবিদ বলেন, ‘শিবসেনা-বিজেপি আলাদা লড়েছে। কংগ্রেস-এনসিপি আলাদা লড়েছে। তাহলে আপনারা কী করে এমন বলতে পারেন? ওদের নিজেদের পথ খুঁজতে হবে। আমাদের করতে হবে নিজস্ব রাজনীতি।’

শারদ পাওয়ারের মন্তব্যে শিবসেনা, কংগ্রেস ও এনসিপি মিলে মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের আলোচনা কতটা ফলপ্রসূ হবে তাই নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। এর আগে শুক্রবারই শারদ পাওয়ার জানিয়েছিলেন, তিন দল একত্র হয়ে জোট গড়ে সরকার গড়বে এবং সেই সরকার পূর্ণ মেয়াদ ক্ষমতায় থাকবে। গতকাল সন্ধ্যায় সোনিয়ার সঙ্গে বৈঠকের কথা শারদ পাওয়ারের।

এনসিপি নেতারা অবশ্য বলছেন, সাংবাদিকদের ‘অন্তঃসারশূন্য’ প্রশ্নের উত্তরে এমনটা বলেছেন শারদ পাওয়ার। কিন্তু সূত্রানুসারে কেন্দ্র নাকি তাঁর ওপরে চাপ দিচ্ছে এই জোট না গড়তে। এনসিপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে অজিত পাওয়ার ও প্রফুল্ল পাটেলকে ইডি আটক করেছে। এদিকে আয়কর দপ্তর হানা দিয়েছে বিএমসি কন্ট্রাক্টরদের অফিসে। শিবসেনাকে লক্ষ্য করেই এই পদক্ষেপ করা হচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। সূত্র : এনডিটিভি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা