kalerkantho

রবিবার । ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯। ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৭ রবিউস সানি                    

আগাম পার্লামেন্ট নির্বাচনের সম্ভাবনা

বৌদ্ধ মন্দিরে শপথ নিয়ে ঐক্যের ডাক গোতাবায়ার

‘এবারের নির্বাচনের মূল বার্তা হচ্ছে সিংহলিদের বেশির ভাগই ভোট আমাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে সহায়তা করেছে। আমি জানি, আমি শুধু সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিদের ভোটেই বিজয়ী হতে পারি। তবে আমি তামিল ও মুসলিমদের আমার সাফল্যের অংশীদার হতে আহ্বান জানিয়েছি।’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বৌদ্ধ মন্দিরে শপথ নিয়ে ঐক্যের ডাক গোতাবায়ার

শ্রীলঙ্কার অনুরাধাপুরার এক বৌদ্ধ মন্দিরে গতকাল শপথ নেওয়ার পর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। ছবি : এএফপি

শপথ নিয়েছেন শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষে। তীব্র সাম্প্রদায়িক বিভাজন সৃষ্টিকারী এই নির্বাচনে জয়লাভের এক দিন পর গতকাল সোমবার একটি প্রাচীন বৌদ্ধ মন্দিরে শপথ নেন তিনি। শপথ অনুষ্ঠানটি সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ সিংহলিদের প্রতি সমর্থনের প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে। তবে বৌদ্ধ মন্দিরে শপথ নিলেও তিনি তামিল ও মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠদের প্রতি ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন।

গত শনিবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গোতাবায়ার এই বিজয় দুই কোটি ১৬ লাখ মানুষের দ্বীপরাষ্ট্রটিকে ধর্মীয় ও জাতিগতভাবে বিভক্ত করেছে। বিশেষ করে সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধ সিংহলি এবং সংখ্যালঘু তামিল ও মুসলিমদের মধ্যে মারাত্মক সাম্প্রদায়িক বিভাজন তৈরি করেছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। গত এপ্রিলে ইস্টার সানডেতে মুসলিম জঙ্গিদের হামলার পর দেশটিতে এমন বিভাজন তৈরি হয়নি। মূলত ওই হামলার পরই অনেকটা হঠাৎ করে নিজেকে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ঘোষণা করেছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপক্ষের ভাই ও তামিলদের সঙ্গে গৃহযুদ্ধকালীন প্রতিরক্ষামন্ত্রী গোতাবায়া রাজাপক্ষে। তাঁকে তামিলদের জন্য চাবুক বলেও বিবেচনা করা হয়।

লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, গতকাল গোতাবায়ার শপথ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয় রাজধানী কলম্বো থেকে প্রায় ২০০ কিলোমিটার দূরে বৌদ্ধ সভ্যতার জন্য বিখ্যাত প্রাচীন নগরী অনুরাধাপুরের রুয়ানমেলিসায়া বৌদ্ধ মন্দিরে। এই মন্দিরে ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ নয়াভিরাম এক বৌদ্ধস্তূপ রয়েছে। বলা হয়, প্রায় দুই হাজার বছর আগে তামিলদের পরাজিত করার পর এক বৌদ্ধ রাজা নয়নাভিরাম স্তূপসহ (বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের দেহাবশেষ) মন্দিরটি নির্মাণ করেছিলেন। শপথ অনুষ্ঠানে গোতাবায়া তাঁর সাফল্যের জন্য বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের আশীর্বাদ প্রার্থনা করেন।

শপথ অনুষ্ঠানে নতুন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘এবারের নির্বাচনের মূল বার্তা হচ্ছে সিংহলিদের বেশির ভাগ ভোটই আমাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে সহায়তা করেছে। আমি জানি, আমি কেবল সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিদের ভোটেই বিজয়ী হতে পারি। তবে আমি তামিল ও মুসলিমদের আমার সাফল্যের অংশীদার হতে আহ্বান জানিয়েছি। কিন্তু তারা যে জবাব দিয়েছে, তা আমি প্রত্যাশা করিনি। যাই হোক, একক শ্রীলঙ্কা গড়তে আমার সঙ্গে যোগ দেওয়ার জন্য আমি তাদের প্রতি আহ্বান জানাই।’

২০০৫ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত গোতাবায়া ছিলেন শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষামন্ত্রী, যখন তাঁর ভাই মাহিন্দা রাজাপক্ষে ছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। তাঁর এই প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালেই তামিলদের সঙ্গে ৩৭ বছরের গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটে। অভিযোগ রয়েছে, তাঁর আমলে তামিলদের বিরুদ্ধে বর্বর অভিযানে ৪০ হাজার বেসামরিক মানুষ নিহত হয়।

আগাম পার্লামেন্ট নির্বাচনের সম্ভাবনা : অন্যদিকে বিরোধী দল এসএলপিপির প্রার্থী গোতাবায়া রাজাপক্ষে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় শ্রীলঙ্কায় আগাম পার্লামেন্ট নির্বাচনের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। গতকাল প্রেসিডেন্টের শপথের দিন ক্ষমতাসীন ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। এ নিয়ে গতকাল রাতে ইউএনপির জ্যেষ্ঠ নেতাদের বসার কথা।

নির্ধারিত সময় অনুযায়ী আগামী বছর ২০২০ সালের আগস্টে পার্লামেন্ট নির্বাচন হওয়ার কথা। কিন্তু গোতাবায়া প্রেসিডেন্ট হওয়ায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহের জন্য কাজ চালিয়ে যাওয়া কঠিন হবে মনে করে আগাম নির্বাচনের দিকে যেতে চাচ্ছে ইউএনপি সরকার। তবে এ জন্য পার্লামেন্টে দুই-তৃতীয়াংশ ভোটের প্রয়োজন হবে এবং ইউএনপির সরকারের পার্লামেন্টে দুর্বল অবস্থানের কারণে আগাম নির্বাচনের পক্ষে ভোট পড়বে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে রাজাপক্ষের দলের জ্যেষ্ঠ নেতারাও বলছেন, এ সরকারের নৈতিক ভিত্তি নেই ক্ষমতায় থাকার। সূত্র : এএফপি, দি টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা