kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

মুসলিম ভোটারদের ওপর অস্ত্রধারীদের হামলা

আজই ফল ঘোষণা হতে পারে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুসলিম ভোটারদের ওপর অস্ত্রধারীদের হামলা

শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গতকাল রাজধানী কলম্বোতে এক ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের দীর্ঘ সারি। অনেক ভোটকেন্দ্র খোলার আগেই সেখানে সার বেঁধে দাঁড়িয়ে যান ভোটাররা। ছবি : এএফপি

ভোটকেন্দ্রগুলোয় ভোটারদের লম্বা লাইন, মুসলিম ভোটারদের বহনকারী ১০০ বাসের বহরে অস্ত্রধারীদের হামলা, কোনো কোনো জায়গায় ভোটার ঠেকাতে সেনাবাহিনীর অপতৎপরতার অভিযোগ—এসবের মধ্য দিয়ে শ্রীলঙ্কায় গতকাল শনিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়ার এ দ্বীপরাষ্ট্রে সাত মাস আগে জঙ্গি হামলায় ২৫০ জন নিহত হওয়ায় নিরাপত্তা নিয়ে যে সংকট দেখা দিয়েছে, সে সংকটকে ইস্যু করে এবার নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বীরা লড়াইয়ের ময়দানে নেমেছেন। ভোটারদের কাছেও ওই ইস্যুই অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত। নিরাপত্তা ইস্যুকে সামনে রেখে অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনের দিন নিরাপত্তাহীনতার আতঙ্ক সৃষ্টির মতো ঘটনা ঘটেছে।

নির্বাচনে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৮৫ হাজার পুলিশ মাঠে থাকা সত্ত্বেও গতকাল শ্রীলঙ্কার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে মুসলিম ভোটারদের বহনকারী ১০০টি বাসের এক বহরে অস্ত্রধারীরা হামলা চালায়। এতে কোনো হতাহত হয়নি বলে পুলিশের দাবি। এ ছাড়া জাফনায় ভোটারদের আটকাতে খোদ সেনাবাহিনী অবৈধভাবে বাধা সৃষ্টি করেছে বলে পুলিশের অভিযোগ। সংকট সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে—এমন সন্দেহে পুলিশ ১০ জনকে গ্রেপ্তার করে। এসব ঘটনার মধ্য দিয়ে ভোটগ্রহণ শেষে আজ রবিবার দুপুর নাগাদ নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে কোনো আনুষ্ঠানিক জরিপ চালানো হয়নি। তবে বিশ্লেষকদের ধারণা, প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপক্ষের ভাই গোতাবায়া রাজাপক্ষে। মাহিন্দার টানা এক দশকের প্রেসিডেন্সির আমলে তিনি প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে ৭০ বছর বয়সী গোতাবায়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রিত্বকালে সেনাবাহিনীর হাতে এক লাখ তামিল নিহত হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এ কারণে তিনি তামিলদের ভীতির কারণ হলেও সংখ্যাগুরু সিংহলি বৌদ্ধদের মধ্যে তিনি জনপ্রিয়।

রাজধানী কলম্বোর ভোটকেন্দ্রে হাজির হওয়া এক নির্মাণ শ্রমিক ৫১ বছর বয়সী বসন্ত সামারাজিউ বলেন, ‘গোতাবায়া আমাদের দেশকে রক্ষা করবেন।’ বলা দরকার, নিরাপত্তা ইস্যুকে প্রাধান্য দেওয়ার পাশাপাশি গোতাবায়া নির্বাচনী প্রচারকালে অবকাঠামো উন্নয়নেও গুরুত্ব দেন।

মোট ৩৫ প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে আরেক শক্তিশালী প্রার্থী হলেন গুপ্তহত্যার শিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট রানাসিংহ প্রেমাদাসার ছেলে সজিত প্রেমাদাসা। ৫২ বছর বয়সী এ রাজনীতিক বর্তমানে আবাসনমন্ত্রী। নির্বাচনী প্রচারে তিনি নিরাপত্তা ইস্যুকে সামনে এনেছেন বটে, তবে দারিদ্র্য ও আবাসন সংকটের মতো বিভিন্ন সামাজিক বিষয়ই তাঁর প্রচারে বেশি গুরুত্ব পেয়েছে।

গতকালের লড়াইটা মূলত গোতাবায়া ও সজিতের মধ্যে হয়েছে বলে মনে করেন পর্যবেক্ষকরা। কে জিতবেন, সেটা আপাতত স্পষ্ট না হলেও তাঁদের ধারণা, নিরাপত্তা ইস্যুকে কেন্দ্র করে গোতাবায়ার জয়ের সম্ভাবনা তুলনামূলক বেশি। কারণ সজিতের দল ইউনাইটেড ন্যাশনাল পার্টির (ইউএনপি) নেতৃত্বাধীন সরকারের আমলে সন্ত্রাসী হামলায় ২৫০ জনের প্রাণহানির ঘটনায় দলটি মানুষের আস্থা হারিয়েছে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা