kalerkantho

শুক্রবার । ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৮ রবিউস সানি ১৪৪১     

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আজ

ফের রাজাপক্ষে পরিবারের আগমনী সংকেত!

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ফের রাজাপক্ষে পরিবারের আগমনী সংকেত!

গোতাবায়া রাজাপক্ষে সজিত প্রেমাদাসা

দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কায় আজ শনিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হচ্ছে। এতে সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী গোতাবায়া রাজাপক্ষে ও আবাসনমন্ত্রী সজিত প্রেমাদাসার মতো শক্তিশালী দুই প্রার্থীসহ মোট ৩৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ২৬ ইঞ্চি ব্যালট পেপারের এ ভোটের পূর্ণাঙ্গ ফল আগামী সোমবারের আগে প্রকাশ করা সম্ভব হবে না বলে ধারণা করছেন নির্বাচনী কর্মকর্তারা।

আজকের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অন্যতম প্রার্থী গোতাবায়া হলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপক্ষের ভাই। বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় তাঁর জয়ের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি দেখতে পাচ্ছেন পর্যবেক্ষকরা। তবে নির্বাচনী প্রচারের শেষ দুই সপ্তাহে আবাসনমন্ত্রী প্রেমাদাসার জনপ্রিয়তা অর্জনের অগ্রগতিও উল্লেখযোগ্য ছিল বলে তাঁদের অভিমত। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত অবশ্য এক কোটি ৬০ লাখ বৈধ ভোটারের হাতে। নিজেদের সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য তারা আজ সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত সময় পাচ্ছে।

নির্বাচনে গণতান্ত্রিকতার আনুষ্ঠানিকতা থাকছে বটে, তবে চূড়ান্ত পরিণতিতে গণতন্ত্রের জয়ধ্বনির চেয়ে স্বৈরতন্ত্রের পদধ্বনি প্রবল হয়ে উঠেছে। দেশটিতে আবার পারিবারিক শাসন প্রতিষ্ঠার আশঙ্কায় আতঙ্কিত হয়ে উঠেছেন পর্যবেক্ষক, বিশ্লেষক আর সেই সঙ্গে সংখ্যালঘু গোষ্ঠীর সদস্যরা। রাজাপক্ষে পরিবারের একজন প্রেসিডেন্ট, একজন প্রধানমন্ত্রী এবং একজন পার্লামেন্টের স্পিকার পদে জাঁকিয়ে বসবেন—এমন আশঙ্কাই ঘুরপাক খাচ্ছে তাঁদের মনে। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, রাজাপক্ষে পরিবারের মোট সাত সদস্য এরই মধ্যে রাজনীতি করছেন এবং আরো অনেকেই পার্লামেন্ট সদস্যদের খাতায় নাম লেখাতে যাচ্ছেন।

মাহিন্দা এরই মধ্যে দুই মেয়াদে প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছেন। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার জেরে তিনি আর এ পদের জন্য লড়তে পারছেন না। তাঁর জায়গায় আজ শনিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ময়দানে থাকছেন তাঁর ভাই গোতাবায়া। পর্যবেক্ষকদের ধারণা, নির্বাচনে তাঁর জয়ের সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি, যদিও মাহিন্দার প্রেসিডেন্সির আমলে তামিল বিদ্রোহীদের কঠোর হাতে দমনের অভিযোগ রয়েছে গোতাবায়ার বিরুদ্ধে। পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কায়, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রেও মামলা হয়েছে।

স্বয়ং মাহিন্দা আগামী বছরের শুরুতে পার্লামেন্টে অনুষ্ঠেয় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে লড়তে যাচ্ছেন। সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার কারণে প্রেসিডেন্সি থেকে নিরস্ত থাকা মাহিন্দার প্রধানমন্ত্রিত্ব প্রায় নিশ্চিত। প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ভাই গোতাবায়ার প্রচার দলের মুখপাত্র কেহেলিয়া রামবুকওয়েলা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য মাহিন্দাই সবচেয়ে পছন্দসই ব্যক্তি।

আরেক গুরুত্বপূর্ণ পদ পার্লামেন্টের স্পিকার। সেখানে সম্ভবত জায়গা করে নিতে যাচ্ছেন মাহিন্দার আরেক ভাই চামাল রাজাপক্ষে। আরেক ভাই বাসিল রাজাপক্ষে তাঁদের দল শ্রীলঙ্কা পদুজানা পেরামুনার আর্থিক কার্যক্রম দেখভাল করেন এবং বর্তমানে বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছানোর গুরুদায়িত্বও পালন করছেন। তাঁদের পরিবারের আরো তিনজন এরই মধ্যে রাজনীতি করছেন। আরো অনেকেই এ পথে পা বাড়াচ্ছেন।

সব মিলিয়ে শিগগিরই শ্রীলঙ্কায় ফের পারিবারিক রাজনীতির আধিপত্য দেখতে হবে বলে অনেকের ধারণা। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রাজিথা সেনারত্ন বলেন, ‘আমরা আবার পারিবারিক শাসনের মুখোমুখি হতে যাচ্ছি।’ এখতিয়ারবহির্ভূত সুযোগ-সুবিধা নেওয়ার ঘটনারও পুনরাবৃত্তি ঘটতে যাচ্ছে বলে তাঁর অভিমত। রাজাপক্ষের পরিবার সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, ‘ওরা ভিন্ন মতাবলম্বী সবাইকে দমন করবে।’ রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যম সানডে অবজারভার তাদের সম্পাদকীয়তে গোতাবায়ার প্রেসিডেন্সি নিয়ে ‘শঙ্কা’ প্রকাশ করেছে এবং ভোটারদের প্রতি ‘সঠিক সিদ্ধান্ত’ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে। তাদের অভিমত, ‘ভুল সিদ্ধান্ত দেশকে স্বৈরতন্ত্র আর লৌহমুষ্ঠির কবলে ফেলে দেবে।’

পারিবারিক শাসনের আশঙ্কা অবশ্য উড়িয়ে দিয়েছেন গোতাবায়ার মুখপাত্র। রামবুকওয়েলার দাবি, গোতাবায়া ক্ষমতায় বসলে কারো সঙ্গে সম্পর্কের ভিত্তিতে নয়, যোগ্যতার ভিত্তিতে বিভিন্ন পদে লোক নিয়োগ করবেন। সূত্র : রয়টার্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা