kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

আনেজ বলিভিয়ার স্বঘোষিত অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট

‘গভীর প্রতারণাপূর্ণ অভ্যুত্থান’ বললেন মোরালেস

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘গভীর প্রতারণাপূর্ণ অভ্যুত্থান’ বললেন মোরালেস

জিয়ানিনে আনেজ

আনুষ্ঠানিকতা পূর্ণ না করেই ক্ষমতায় বসে গেছেন বলিভিয়ার ডেপুটি সিনেট স্পিকার জিয়ানিনে আনেজ। গত মঙ্গলবার তিনি নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করার পর অবশ্য দেশটির সাংবিধানিক আদালত তাঁকে স্বীকৃতি দেন।

বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট পদে হঠাৎ শূন্যতার জেরে দেশটিতে একের পর এক ঘটনা ঘটে চলেছে। প্রেসিডেন্ট পদ থেকে এভো মোরালেসের অপসারণের দাবিতে কয়েক সপ্তাহের আন্দোলন এবং সব শেষে তাঁর ওপর থেকে সেনাবাহিনীর সমর্থন উঠে যাওয়ায় তিনি পদত্যাগ করেন। পদত্যাগের পর মেক্সিকোয় রাজনৈতিক আশ্রয় নিতেও দেরি হয়নি তাঁর। মোরালেসের পদত্যাগের পর তাঁর অনুসারীদের অনেকে বিভিন্ন পদ থেকে সরে দাঁড়ান, যাঁদের মধ্যে রয়েছেন ভাইস প্রেসিডেন্ট, কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটের প্রেসিডেন্ট ও নিম্নকক্ষের স্পিকার।

সরকারের এমন বিশৃঙ্খল অবস্থায় ডেপুটি সিনেট স্পিকার আনেজকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট পদে বসাতে এবং বিভিন্ন কর্মকর্তার পদত্যাগ বিষয়ক আনুষ্ঠানিকতা সারতে মঙ্গলবার পার্লামেন্টের সভা আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু এদিন কোরাম সংকটের কারণে আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা যায়নি। কোরাম সংকটের মধ্যেই আনেজ নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন। এ সময় কংগ্রেসে শুধু তাঁর সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন। নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করে তিনি বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব আমরা নতুন নির্বাচন করতে চাই। দেশের প্রতি এটা আমাদের অঙ্গীকার এবং আমরা তা পূরণ করব।’ আগামী ২২ জানুয়ারির মধ্যে তিনি নতুন সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের অঙ্গীকার করেছেন। স্বঘোষিত অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট আনেজ এরপর বাইবেল হাতে এবং প্রেসিডেনশিয়াল উত্তরীয় গায়ে জড়িয়ে সরকারি প্রাসাদের বারান্দায় দাঁড়িয়ে সমর্থকদের উদ্দেশে ভাষণ দেন।

কংগ্রেসে কোরাম সংকট ঘিরে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টির আগে অবশ্য আনেজ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানিয়েছিলেন, কোরাম পূরণের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক সিনেটর অবশ্যই কংগ্রেসে উপস্থিত থাকবেন। বলিভিয়ার ৩৬ সদস্যবিশিষ্ট সিনেটে কোরাম পূর্ণ করার জন্য ১৯ জনের উপস্থিতির প্রয়োজন হয়।

দেশে ঘটে যাওয়া ওই ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন নির্বাসনে থাকা মোরালেস। টুইট বার্তায় তিনি আনেজের পদক্ষেপকে ‘ইতিহাসের সবচেয়ে প্রতারণাপূর্ণ ও সবচেয়ে পৈশাচিক অভ্যুত্থান’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন। মেক্সিকোয় রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা মোরালেস সংগ্রাম চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়ও ব্যক্ত করেছেন। পাশাপাশি আশ্রয় দেওয়ায় মেক্সিকোর প্রেসিডেন্টকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘উনি আমার জীবন রক্ষা করেছেন।’

অন্যদিকে গত ২০ অক্টোবরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মোরালেসের কাছে পরাজিত কার্লোস মেসা অভিনন্দন জানিয়েছেন আনেজকে। এ ছাড়া বিরোধী দলের অন্যতম শক্তিশালী নেতা লুইস ফার্নান্দেজ কামাচো আন্দোলনের সমাপ্তি টেনে অবরোধ প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছেন।

বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মোরালেসের পদত্যাগের দাবিতে কয়েক সপ্তাহ ধরে আন্দোলন চলছিল। এ অস্থিতিশীলতায় নির্বাচনের পর থেকে এ পর্যন্ত সাতজন নিহত হয়েছে বলে জানান অ্যাটর্নি জেনারেল হুয়ান লানচিপা। পরিস্থিতি প্রতিকূলে চলে যাওয়ায় শেষ পর্যন্ত ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হন মোরালেস। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা