kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

মিশ্র প্রতিক্রিয়া আন্তর্জাতিক মহলে

মেক্সিকোতে রাজনৈতিক আশ্রয়ে মোরালেস

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মেক্সিকোতে রাজনৈতিক আশ্রয়ে মোরালেস

মেক্সিকোতে রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়েছেন আন্দোলনের মুখে পদত্যাগ করা বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেস। পদত্যাগের এক দিন পর সোমবার মেক্সিকোর একটি বিমানে দেশ ছাড়েন তিনি। এদিকে মোরালেস পদত্যাগ করলেও বলিভিয়ায় সহিংসতা কমেনি। পুলিশের সঙ্গে মোরালেস সমর্থকদের সংঘর্ষে গত সোমবারও ২০ জন আহত হয়েছে।

অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নিয়েছেন সিনেটের উপপ্রধান জিনাইন আনেজ। তিনি শিগগিরই নতুন নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগে বলিভিয়ায় কয়েক সপ্তাহ ধরে আন্দোলন চলছিল। কিন্তু রবিবার এক দিনেই অনেক ঘটনা ঘটে দেশটিতে। ওই দিন ৩৫টি দেশের আঞ্চলিক জোট—অর্গানাইজেশন অব আমেরিকান স্টেটস (ওএএস) তদন্তের ভিত্তিতে জানায়, নির্বাচনের প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে কারচুপি হয়েছে। এ তথ্য সামনে আসার পর নতুন করে নির্বাচনের ঘোষণা দেন মোরালেস। কিন্তু বিরোধীরা সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। এর মধ্যে মোরালেসকে সামরিক বাহিনীর প্রধান জেনারেল উইলিয়ামস কালিমান পদত্যাগের আহ্বান জানালে পরিস্থিতি পাল্টে যায়। শেষমেশ পদত্যাগের ঘোষণা দেন ১৩ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা মোরালেস।

সোমবার দেশত্যাগের সময় টুইটারে ৬০ বছর বয়সী বামপন্থী এই নেতা বলেন, ‘বলিভিয়া ছাড়ার বিষয়টি বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে। তবে আরো শক্তি নিয়ে আমি ফিরে আসব।’

রাজধানী লা পাজের পাশাপাশি দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এল আলতোতে সহিংসতা অব্যাহত আছে। সেখানে পুলিশের সঙ্গে মোরালেস সমর্থকদের সংঘর্ষে সোমবার ২০ জন আহত হয়েছে। পুলিশের পাশে দাঁড়াতে সেনা সদস্যদের নির্দেশ দিয়েছেন সামরিক বাহিনীর কমান্ডার। সহিংসতার কারণে শহর দুটির জনজীবন থমকে গেছে। লুটপাটের ভয়ে বন্ধ ছিল প্রায় সব দোকানপাট।

মোরালেসের পদত্যাগের বিষয়ে বিশ্বনেতাদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেছে। মোরালেসের পক্ষে বিক্ষোভ হয় আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েনস এইরেসে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘মোরালেসের পদত্যাগ ‘পশ্চিমা গণতন্ত্রের জন্য গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত।’

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘প্রেসিডেন্ট হিসেবে মোরালেসের যে ম্যান্ডেট ছিল, তা তিনি বিরোধীদের সৃষ্ট সহিংসতার কারণে সম্পন্ন করতে পারলেন না।’

কিউবার প্রেসিডেন্ট মিগুয়েল দিয়াজ কানেল বলেছেন, ‘সহিংসতার মাধ্যমে বলিভিয়ার গণতন্ত্রকে উত্খাত করা হলো।’ মোরালেসের পক্ষে বিবৃতি দিয়েছে নিকারাগুয়া ও ভেনিজুয়েলা। বলিভিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপে উদ্বেগ জানিয়ে স্পেন বলেছে, ‘এই হস্তক্ষেপ আমাদের লাতিন আমেরিকার অতীতকে মনে করিয়ে দিচ্ছে।’

সূত্র : বিবিসি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা