kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

মুক্তি পেলেন ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




মুক্তি পেলেন ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা

ব্রাজিলের পারানা রাজ্যের কুরিতিবা শহরের কারাগার থেকে গত শনিবার বের হয়ে আসার পর সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট লুলা। ছবি : এএফপি

কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন ব্রাজিলের সাবেক প্রেসিডেন্ট লুইজ ইনাসিও লুলা দ্য সিলভা। দুর্নীতির দায়ে ১৮ মাস কারাভোগের পর গত শুক্রবার মুক্তি পান তিনি।

নিম্ন আদালতের রায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কুরিতিবা শহরের একটি কারাগারে বন্দি ছিলেন ৭৪ বছর বয়সী বাম ঘরানার নেতা লুলা। নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে মুক্তি পান তিনি। লুলাকে মুক্তির আদেশ দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের বিচারক বলেন, ‘আপিল আবেদনের সুযোগ শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত কোনো বিবাদীকে কারাবন্দি করা যাবে না।’

অবশ্য লুলার মুক্তির পেছনে প্রভাব ছিল গত বৃহস্পতিবার দেওয়া সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ের। ওই রায়ে আগের একটি আইন বাতিল করে দেন বিচারকরা। আগের ওই আইনে বলা ছিল, প্রথম আপিলে হেরে যাওয়ার পরেই একজন অভিযুক্তকে কারাগারে যেতে হবে।

ব্রাজিলে হাজার হাজার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের যে অভিযোগ উঠেছে, লুলা তাঁদের একজন। তিনি ২০০৩ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত ব্রাজিলের ক্ষমতায় ছিলেন। শুক্রবার কারা ফটকে আকাশের দিকে তাকিয়ে অপেক্ষমাণ সমর্থকদের উদ্দেশে বিজয় চিহ্ন দেখান তিনি। এরপর সমর্থকদের উদ্দেশে লুলা বলেন, ‘গত ৫৮০ দিন যাঁরা আমার পাশে ছিলেন, আমি ভাবতেই পারিনি আজ আবার তাঁদের সঙ্গে কথা বলতে পারব।’ লুলা বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে, সেগুলো তিনি মিথ্যা প্রমাণ করে ছাড়বেন।

গত বছরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দৌড়ে লুলাই সবচেয়ে এগিয়ে ছিলেন। কিন্তু নির্বাচনের আগেই দুর্নীতির দায়ে কারাগারে যেতে হয় তাঁকে। ফলে নির্বাচনে জয়ী হন ডানপন্থী প্রার্থী জেইর বোলসোনারো।

বর্তমান প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করে লুলা বলেন, ‘মানুষ ক্ষুধার্ত। তাদের চাকরি নেই। তারা উবারের গাড়ি চালিয়ে কিংবা মোটরসাইকেলে পিত্জা সরবরাহ করে জীবন কাটাচ্ছে।’ লুলা দলের সমর্থকদের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, মিথ্যা অভিযোগে কারাবন্দি ব্রাজিলিয়ানদের তিনি মুক্ত করবেন।

যদিও ফৌজদারি অপরাধের কারণে লুলা নির্বাচনে লড়তে পারবেন না। তবে এই কারামুক্তি সমর্থকদের মনোবল বাড়ানোর পাশাপাশি লুলার ওয়ার্কার্স পার্টিকে আরো শক্তিশালী করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, লুলা খুব বেশি দিন মুক্ত থাকতে পারবেন না। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, আপাতত মুক্তি পেলেও এই মামলার আপিলে তিনি শেষ পর্যন্ত হেরে যাবেন। এ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির আরো একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সূত্র : এএফপি, বিবিসি।

 

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা