kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৯ নভেম্বর ২০১৯। ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্তে ‘নাটকীয় অগ্রগতি’

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্তে ‘নাটকীয় অগ্রগতি’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন তদন্তে ‘নাটকীয় অগ্রগতি’ হয়েছে বলে দাবি করেছেন তদন্ত কমিটির প্রধান। তদন্তে সাক্ষ্য দিতে আসা প্রত্যক্ষাদর্শীদের কাছ থেকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভাবনীয় তথ্য পাওয়া  গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনকে কোণঠাসা করার জন্য ট্রাম্প ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের ওপর অনৈতিক চাপ প্রয়োগ করেছেন বলে অভিযোগ তুলে সম্প্রতি তাঁর অভিশংসনের তদন্ত শুরু করে কংগ্রেস।

তবে কংগ্রেসের এই তদন্তে সহায়তা করবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে হোয়াইট হাউস এবং ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আইনজীবী রুডি গিলিয়ানি। এমন এক পরিস্থিতির মধ্যে দাঁড়িয়ে গত মঙ্গলবার কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের গোয়েন্দাবিষয়ক কমিটির প্রধান অ্যাডান স্কিফ বলেন, অন্তত পাঁচজন প্রত্যক্ষদর্শী তাঁদের সাক্ষ্যে জানিয়েছেন, ট্রাম্প যেভাবে তাঁর ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন তাতে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিশংসনের অভিযোগ আনা সম্ভব।

প্রত্যক্ষদর্শীরা তাঁদের সাক্ষ্যে জানিয়েছেন, গত ২৫ জুলাই ট্রাম্প ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন। এ সময় তিনি সামরিক সহায়তার বিনিময়ে জেলেনস্কিকে বাইডেনের ছেলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত শুরু করার কথা বলেন। বিষয়টি মোটেই আকস্মিক কিছু বা ঘটনাক্রমে চলে আসেনি। গোছানো পরিকল্পনা থেকেই ট্রাম্প ওই দিন কিয়েভে কথা বলেন। এমনকি টেলিফোনে আলাপ সারার পরও বিষয়টি নিয়ে কাজ করেছেন ট্রাম্প ও তাঁর ঘনিষ্ঠ কয়েকজন। প্রসঙ্গত, ইউক্রেনের একটি তেল কম্পানির অংশীদার ছিলেন বাইডেনের ছেলে হান্টার বাইডেন। ওই সময় তিনি কিছু অনিয়মের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন বলে অভিযোগ রয়েছে। সে প্রসঙ্গের দিকে ইঙ্গিত করেই তদন্ত করার কথা বলেন ট্রাম্প। আগামী বছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে বিরোধী ডেমোক্রেটিক প্রার্থিতা প্রত্যাশীদের মধ্যে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন বাইডেন।

স্কিফ গত মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘জুলাই মাসের ফোনের ব্যাপারে আমরা আমাদের প্রশ্নের নাটকীয় জবাব পেয়েছি। এ থেকে আমরা জানতে পেরেছি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট তাঁর রাজনৈতিক বিরোধীর নামে কুৎসা রটাতে একজন বিদেশি রাষ্ট্রপ্রধানের কাছে সহায়তা চেয়েছেন।’

এর মাত্র এক দিন আগেই এই তদন্ত কমিটির সামনে সাক্ষ্য দেন হোয়াইট হাউসের রাশিয়াবিষয়ক সাবেক উপদেষ্টা ফিয়োনা হিল। তিনিসহ আরো কয়েকজন রুদ্ধদ্বার কক্ষে দেওয়া ওই সব সাক্ষ্যে বলেন, জেলেনস্কির সঙ্গে ফোনালাপে প্রেসিডেন্ট নীতি লঙ্ঘন করে থাকতে পারেন। হিল বলেন, তাঁর বস সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন বিষয়টি সম্পর্কে একবার বলেন, ট্রাম্প ও গিলিয়ানি  জেলেনস্কির ওপর যে চাপ প্রয়োগ করেছেন, তাকে মাদকের লেনদেনের সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে। এর সঙ্গে হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ মাইক মুলভানিও যুক্ত ছিলেন। সূত্র : সিএনএন, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা