kalerkantho

বুধবার । ১৩ নভেম্বর ২০১৯। ২৮ কার্তিক ১৪২৬। ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

১০ দিন তিহার জেলে ছিলেন অভিজিৎ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায় ভালো রাঁধতে পারেন। শাস্ত্রীয় সংগীতে তাঁর যাতায়াত অবাধ। পুরস্কার প্রাপক হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা হতেই এমন নানা খবর সামনে আসছিল। এবার উঠে এলো আরো চমকপ্রদ তথ্য। ছাত্রজীবনে ১০ দিন তিহার জেলে কাটাতে হয়েছিল তাঁকে। এই তথ্য খোদ অভিজিৎই ২০১৬ সালে জানিয়েছিলেন এক ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে।

সময়টা ১৯৮৩ সাল। জওয়াহেরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিজিতের শেষ বছর সেটা। সে বছরই ছাত্রসংসদের প্রেসিডেন্টকে বরখাস্ত করার ঘটনার প্রতিবাদে উপাচার্যকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ঘেরাও করেন অভিজিত্রা। সেই কারণেই তাঁদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাওয়া হয় তিহার জেলে। ১৯৮৩ সালের ঘটনাটির সঙ্গে মিল পাওয়া যাবে ২০১৬ সালের উত্তাল জওয়াহেরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ছবিটার। সেবারও বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন হয়েছিল।

অভিজিৎ বিনায়ক সেই ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে লেখেন, ‘আমাদের রীতিমতো পেটানো হয়েছিল। তারপর তিহার জেলে নিয়ে যাওয়া হয়। দেশদ্রোহের অভিযোগ আনা হয়েছিল আমাদের নামে। এমনকি খুনের চেষ্টার ধারাতেও মামলা দেওয়া হয়। ঈশ্বরের কৃপায় পরে সেই ধারা তুলে নেয় পুলিশ। কিন্তু ১০টা দিন তিহার জেলেই রাত্রিবাস করতে হয়েছিল সেবার।’

২০১৬ সালের জেএনইউতে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল তা নিয়েই ছিল অভিজিতের ওই কলম। নিজের লেখায় অতীত তুলে এনে এই ধরনের ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রের গা-জোয়ারি’ বলেও উল্লেখ করেন। তাঁর মতে, দুবারই বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো সুরক্ষিত পরিসর আর নিরাপদ থাকেনি রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপের ফলে।

সূত্র : আনন্দবাজার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা