kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সিরীয় কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুর্কি হামলা

তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় ট্রাম্পের অনুমোদন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৩ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞায় ট্রাম্পের অনুমোদন

সিরিয়ার উত্তর সীমান্তের রাস আল আইন শহর দখলে নেওয়ার খবর গতকাল শনিবার নিশ্চিত করেছে তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। সিরিয়ার ভেতর তুর্কি বাহিনীর অব্যাহত অভিযানের মধ্যে তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতি নিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। অভিযান চলাকালে মার্কিন ঘাঁটিতে কামান দাগার ঘটনাও ঘটেছে। এর মধ্যে সিরিয়া ইস্যুতে মধ্যস্থতার প্রস্তাব দিয়েছে ইরান। আর পাকিস্তান তুরস্কের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে।

গত বুধবার থেকে সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে তুরস্কের কুর্দিবিরোধী সামরিক অভিযান চলছে। তুরস্কের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় গতকাল জানায়, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্তবর্তী রাস আল আইন শহর এখন তাদের দখলে।

যুদ্ধ পরিস্থিতি সম্পর্কে যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস (এসওএইচআর) জানায়, গত শুক্রবার রাতভর যুদ্ধে সিরিয়ান ডেমোক্রেটিক ফোর্সেসের (এসডিএফ) কমপক্ষে ২০ যোদ্ধা নিহত হয়েছে। এ নিয়ে গত বুধবার থেকে মোট ৭৪ এসডিএফ সদস্য নিহত হলো।

যুদ্ধে সাধারণ নাগরিক হতাহতের তথ্য সম্পর্কে এসওএইচআর জানায়, সিরিয়ায় গতকাল কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছে। আর তুরস্কে নিহত হয়েছে ১৭ জন। এক লাখের বেশি মানুষ এরই মধ্যে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। সিরিয়ার কুর্দি প্রশাসনিক কর্মকর্তারা অবশ্য জানিয়েছেন, বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা প্রায় দুই লাখে পৌঁছেছে। সব মিলিয়ে সাড়ে চার লাখ মানুষের বাস্তুচ্যুত হওয়ার আশঙ্কা করছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলো।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা সদর দপ্তর পেন্টাগন জানায়, সিরিয়ায় তুরস্কের অব্যাহত হামলার মধ্যে গত শুক্রবার ওই অঞ্চলে মার্কিন ঘাঁটিতে কামানের গোলা নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। তবে এতে কোনো মার্কিন সেনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি জানিয়ে মার্কিন পক্ষ হুঁশিয়ারি দিয়েছে, তুরস্কের কর্মকাণ্ডের কারণে মার্কিন বাহিনী যেন পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণে বাধ্য না হয়। তুরস্ক অবশ্য দাবি করেছে, তারা উদ্দেশ্যমূলকভাবে ওই হামলা করেনি।

তুরস্কের এ হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের ‘সবুজ সংকেত’ ছিল, সংবাদমাধ্যমে এমন খবর ছড়ালেও পরে এর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তাঁর প্রশাসন। মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভেন এমন্যুচিন জানান, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তুরস্কের বিরুদ্ধে ‘অত্যন্ত অর্থবহ নতুন নিষেধাজ্ঞায়’ অনুমোদন দিয়েছেন। ওই নিষেধাজ্ঞা এখনো কার্যকর করা হয়নি। মার্কিন কংগ্রেসের ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান উভয় পক্ষ জানিয়েছে, সিরীয় কুর্দিদের ওপর তুরস্ক পুরোদমে হামলা শুরু করলে ওই নিষেধাজ্ঞা কার্যকরে তাদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে।

যুক্তরাষ্ট্রের এমন অবস্থানের প্রতিক্রিয়ায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়িপ এরদোয়ান গত শুক্রবার বলেছেন, ‘এখন বাঁ দিক থেকে, ডান দিক থেকে হুমকি আসছে, আমাদের থামতে বলা হচ্ছে। আমরা পিছু হটব না।’

এর মধ্যে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ গতকাল সিরিয়ার সরকার, কুর্দি বিদ্রোহী ও তুরস্কের মধ্যে মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছে। গতকাল এক টুইট বার্তায় তিনি মধ্যস্থতার এ প্রস্তাব দেন।

এদিকে পাকিস্তান সরাসরি তুরস্ককে সমর্থন দিয়েছে। গত শুক্রবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তুরস্কের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন এবং তুরস্কের প্রতি ‘সমর্থন ও সংহতি’ জানান। বলা দরকার, এ মাসেই এরদোয়ানের পাকিস্তান সফরে যাওয়ার কথা। সূত্র : এএফপি, বিবিসি, রয়টার্স।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা