kalerkantho

মঙ্গলবার । ১২ নভেম্বর ২০১৯। ২৭ কার্তিক ১৪২৬। ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা বাতিল করলেন ট্রাম্প

আগমুহূর্তে বাতিল গোপন বৈঠকও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা বাতিল করলেন ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, তিনি আফগান তালেবানের সঙ্গে চলমান শান্তি আলোচনা বাতিল করেছেন। একই সঙ্গে তালেবান শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে একটি গোপন বৈঠকও কয়েক ঘণ্টা আগে বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে প্রেসিডেন্টের অবকাশ যাপন কেন্দ্র ক্যাম্প ডেভিডে গতকাল রবিবার গোপন বৈঠকটি হওয়ার কথা ছিল। এতে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির অংশ নেওয়ারও পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু শনিবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এক টুইটে হঠাৎ করেই বৈঠকটি বাতিলের ঘোষণা দেন ট্রাম্প।

গত বৃহস্পতিবার কাবুলের কূটনৈতিক এলাকা শাশ দারকে গাড়ি বোমা হামলায় মার্কিনিসহ ১২ জন নিহত হয়। এতে ন্যাটো নেতৃত্বাধীন বহিনীর এক রুমানীয় সৈন্যও নিহত হয়। এ হামলার দায় তালেবান স্বীকার করার পর বৈঠক ও পুরো শান্তি আলোচনা বাতিলের ঘোষণা দেন। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দীর্ঘতম যুদ্ধ আলোচনার মাধ্যমে অবসানের সম্ভাবনা আপাতত বন্ধ হয়ে গেল।

ডোনাল্ড ট্রাম্প টুইটে বাতিল হওয়া বৈঠককে অভূতপূর্ব বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘রবিবার ক্যাম্প ডেভিডে প্রায় সবার অজান্তে শীর্ষ তালেবান নেতারা এবং আলাদাভাবে আফগান প্রেসিডেন্ট আমার সঙ্গে গোপনে বসার কথা ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে একটি ভ্রান্ত কৌশল অবলম্বনের জন্য তারা (তালেবান) কাবুলে হামলার কথা স্বীকার করে নিল। এ হামলায় আমাদের এক মহান মহান সেনা ও অন্য ১১ জন নিহত হলো। ফলে আমি তাৎক্ষণিকভাবে এই বৈঠক বাতিল করে দিই এবং শান্তি আলোচনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিই।’ ট্রাম্প বলেন, তারা যদি এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার সময় যুদ্ধবিরতিতে রাজি না হয়, এমনকি তারা যদি নিষ্পাপ মানুষকে হত্যা করে, তাহলে অর্থবহ আলোচনা করে সমঝোতায় পৌঁছার মতো কোনো সক্ষমতা সম্ভবত তাদের নেই।

৯/১১-এর হামলার বার্ষিকীর কয়েক দিন আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট এই গোপন বৈঠকে বসতে চেয়েছিলেন। এর আগে গত সোমবার তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনায় আফগান বংশোদ্ভূত মার্কিন দূত খালিলজাদ ঘোষণা করেন যে তালেবানের সঙ্গে ‘নীতিগত’ একটি চুক্তি হতে যাচ্ছে। প্রস্তাবিত চুক্তি অনুযায়ী, আগামী ২০ সপ্তাহের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে ৫ হাজার ৪০০ সেনা প্রত্যাহার করে নেবে যুক্তরাষ্ট্র।

২০০১ সালে মার্কিন হস্তক্ষেপের পর থেকে যেকোনো সময়ের তুলনায় এখন আফগানিস্তানের আরো বেশিসংখ্যক অঞ্চল তালেবানের দখলে। তালেবান আফগান সরকারের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনায় বসতে রাজি নয়। তাদের ভাষায়, আফগান সরকার যুক্তরাষ্ট্রের হাতের পুতুল। এ অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবান নেতৃত্বের সঙ্গে কয়েক মাস ধরে আলোচনা চালিয়ে আসেন জালমে খালিলজাদ। শেষ পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়া বাতিল হয়ে গেল।

তবে হঠাৎ করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের শান্তি আলোচনা বাতিলের ঘোষণা ওয়াশিংটনে আলোড়ন তুলেছে। এ নিয়ে প্রশ্নও দেখা দিয়েছে। এ বিষয়ে ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইসিস গ্রুপের এশীয় পরিচালক লরেল মিলার বলেন, বৃহস্পতিবারের ওই হামলাই শান্তি আলোচনা প্রত্যাহারের একমাত্র কারণ নয়। সম্প্রতি তালেবানের হামলা বেড়েও যাওয়া এর কারণ। ডেমোক্র্যাট কংগ্রেসম্যান টম ম্যালিনোস্কি বলেন, “ক্যাম্প ডেভিডে তালেবান নেতাদের ডাকা ‘রহস্যময়’। তবে আমি প্রেসিডেন্টের এ বাতিলের সিদ্ধান্ত খুশি হয়েছি।”

সূত্র : বিবিসি, এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা