kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে বন্দিবিনিময়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে বন্দিবিনিময়

বন্দিবিনিময়ের দীর্ঘ প্রতীক্ষিত সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ায় গতকাল দেশে ফিরে প্রিয়জনদের বুকে জড়িয়ে নিতে পেরেছেন ইউক্রেনের এ নাগরিক। ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে বরিসপিল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এ দৃশ্যের অবতারণা হয়। ছবি : এএফপি

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে নিজেদের মধ্যে বন্দিবিনিময় করেছে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দুই প্রতিবেশী দেশ রাশিয়া ও ইউক্রেন। গতকাল শনিবার দুই দেশের মধ্যে ৭০ জন বন্দিবিনিময় হয়েছে বলে জানিয়েছে ইউক্রেন সরকার সূত্র ও রাশিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যম চ্যানেল রাশিয়া ২৪। এর ফলে মস্কো সমর্থিত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে যুদ্ধ এবং ক্রিমিয়া ইস্যু নিয়ে দুই দেশের মধ্যে চলমান উত্তেজনা কিছুটা কমতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।  

ইউক্রেন সরকার সূত্র জানিয়েছে, দুই দেশের মধ্যে ৩৫ জন করে মোট ৭০ জন বন্দিবিনিময় হয়েছে। এই বন্দিদের মধ্যে দুই দেশেরই গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন রয়েছে। তাদের মধ্যে একজন হলেন ইউক্রেনের চলচ্চিত্র নির্মাতা ওলেগ সেন্তভ। ২০১৪ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার পর রাশিয়ার জেল থেকে তাঁকে মুক্তি দেওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়েও প্রচার চালানো হয়েছিল। ওলেগ সেন্তভের সঙ্গে ইউক্রেনের যেসব বন্দি নিজ দেশে ফিরতে পেরেছেন তাদের মধ্যে গত বছর রাশিয়ার হাতে আটক হওয়া ২২ নাবিক এবং দুই নিরাপত্তা কর্মকর্তা রয়েছেন। এ ছাড়া ইউক্রেনের সংবাদ সংস্থার প্যারিস প্রতিনিধি রোমান শুসচেঙ্কো, ব্লগার পাভলো গ্রিইব, ইতিহাসের অধ্যাপক স্ট্যানসিসলাভ ক্লিখ এবং বিক্ষোভকারী দলের সদস্য মাইকোলা কারপিউককেও হস্তান্তর করেছে রাশিয়া।

এদিকে রাশিয়ার যে বন্দিদের ইউক্রেন ফেরত দিয়েছে তাদের মধ্যে রাশিয়ার সংবাদ সংস্থার সাংবাদিক কিরিলো ভিসিনস্কি এবং বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে আঁতাতের দায়ে অভিযুক্ত বিমান প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞ ভ্লাদিমির সেমাখ রয়েছেন। ২০১৪ সালে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চল নিয়ে দ্বন্দ্বের পর দেশ দুটির মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড় বন্দিবিনিময়ের ঘটনা। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা